বদলে গেল প্রধানমন্ত্রী গ্রামীণ সড়ক যোজনার নাম !

0
40

নিজস্ব প্রতিনিধি,পুরুলিয়া ঃ   রাতারাতি বদলে গেল প্রকল্পের নাম। প্রধানমন্ত্রী গ্রামীণ সড়ক যোজনা হয়ে গেল বাংলার গ্রামীণ সড়ক যোজনা। নির্মীয়মাণ রাস্তার পাশের বোর্ডের উপর সেঁটে দেওয়া হল স্টিকার। ঘটনাটি পুরুলিয়ার ২ নম্বর ব্লকের পিঁড়রা পঞ্চায়েত এলাকার।

পুরুলিয়ার পিঁড়রা গ্রাম পঞ্চায়েতের ভাঁগাবাঁধ থেকে শীতলপুর গ্রাম পর্যন্ত মোট ৬.৯৮৭ কিলোমিটার রাস্তার কাজ পিডাব্লুডি-এর তত্ত্বাবধানে শুরু হয়। কাজের শুরুতেই রাস্তার মূল গেটে বিস্তারিত তথ্যসহ প্রধানমন্ত্রী গ্রামীণ সড়ক যোজনা নামের দু’টি সাইনবোর্ড লাগানো হয়। গ্রামবাসীরা বুঝতে পারেন কেন্দ্রীয় সরকারের অনুদানে এই কাজ শুরু হয়েছে। কয়েকদিন কাজ চলার পর রাতারাতি বদলে যায় বোর্ডের নাম। প্রধানমন্ত্রী গ্রামীণের নামের উপর বাংলার গ্রামীণ স্টিকার লাগানো হয়। যদিও এই পরিবর্তন নজরে আসেনি কাজের সঙ্গে যুক্ত শ্রমিক থেকে শুরু করে এলাকার মানুষের। সংবাদমাধ্যমের তরফে এবিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তাঁরা নাম পরিবর্তনের বিষয়টি বুঝতে পারেন। কিন্ত, কেন এই পরিবর্তন তার জবাব পাওয়া যায়নি।
পুরুলিয়া ২ নম্বর ব্লকের ভাঁগাবাঁধ গ্রামের বাসিন্দা অখিলেশ মাহাত বলেন, “এই রাস্তার অবস্থা দীর্ঘদিন ধরে বেহাল। অসুবিধার মধ্যে দিয়ে যাওয়া আসা করতে হত। এই রাস্তা মেরামত করা হলে এলাকাবাসীরা খুবই উপকৃত হবেন। এজন্য কেন্দ্রীয় সরকারকে ধন্যবাদ।” এরপর নাম বদল প্রসঙ্গে অখিলেশ বলেন, “আমরা তো বরাবরই অন্ধকারে রয়েছি। জেনেই বা কী করতে পারব। রাতারাতি চুপিচুপি সব বদলে যাচ্ছে।”

অন্যদিকে, রাস্তা তৈরির কাজ দেখভালের দায়িত্বে থাকা মুন্না মাহাত ও সুভাষ চন্দ্র মাহাত বলেন, “প্রধানমন্ত্রী গ্রামীণ সড়ক যোজনায় এই কাজ শুরু হয়েছিল। কিন্তু, সাইনবোর্ডে নাম পালটানোর ব্যাপারে কিছু জানি না।”

এরপর পুরুলিয়ার জেলা পরিষদের সভাধিপতি সুজয় বন্দোপাধ্যায়ের কাছে যাওয়া হয়। তাঁকে এই নাম বদলের বিষয়ে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, “এই কাজের জন্য আমাদের সরকার ৫০ শতাংশ টাকা দিচ্ছে এবং দিল্লি থেকে ৫০ শতাংশ টাকা দেওয়া হচ্ছে। তাহলে, প্রধানমন্ত্রী গ্রামীণ সড়ক যোজনা নাম রাখব কেন? তাছাড়া দিল্লির সরকার পশ্চিমবঙ্গ থেকে কর আদায় করে সেই ৫০ শতাংশ টাকা আমাদেরই ফিরিয়ে দিচ্ছে। তাই, আমাদের মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী বা মুখ্যমন্ত্রী কারও নামই প্রকল্পে থাকবে না। বাংলার মানুষের প্রকল্প তাই বাংলার গ্রামীণ সড়ক যোজনা নাম হবে। সেটাই করা হচ্ছে।”পুরোনো বোর্ডের উপর স্টিকার সাঁটানোর বিষয়ে তিনি বলেন, “কী ভেবেছেন আপনারা? শুধু স্টিকার সাঁটানোটাই দেখছেন। দরকার হলে পুরো নামটাই বোর্ড থেকে আমরা মুছে দেব।”

 

LEAVE A REPLY