‘অফসাইডার’ অথবা নিয়মের বাইয়ে যারা বেরিয়ে পড়েছেন

    0
    1610

    ‘অফসাইড’ শব্দটা হঠাৎই মনে এল। ইরানী পরিচালক জাফার পানাহি ২০০৬-সালে একটি সিনেমা বানিয়ে ছিলেন, ‘অফসাইড’। কেন মনে এলো সে প্রসঙ্গে আসবো। গত ১০ই জুন(২০১৮) আমাদের প্রতিবেশি ‘বাংলাদেশ’এর মেয়েরা সেদেশের ক্রিকেটের ইতিহাসে আজীবনের জন্যে একটি ‘মাইলফলক’ তৈরি করে ফেলেছেন এমনটাই মনে করা হচ্ছে। আমি ‘মনে করা হচ্ছে’ এই কথাটির মাধ্যমে তাদের জয়-কৃতিত্বকে কোনও ভাবে নেতিবাচক সমালোচনা করছি তেমনটা তো নয়ই, বরং আমি বলতে চাইছি যে, বাংলাদেশের মহিলা ক্রিকেট দল প্রায় ১১বছর হল আন্তর্জাতিক ময়দানে পা রেখেছেন। প্রশ্ন হল যারা তাদের ‘ভারতের বিপক্ষে এশিয়া কাপের ফাইনালের জয়’কে ‘ঐতিহাসিক’, ‘অনন্য’, ‘বাংলার বাঘিনী’, ‘কালজয়ী’ ইত্যাদি আখ্যা দিয়েছেন বা দিয়ে চলেছেন, তারা এর আগে ঠিক কতবার তাদের খেলা টেলিভিশনে স্বেচ্ছায় দেখেছেন? কতবার নিজের দেশের(ভারত/বাংলাদেশ সব দেশের উদ্দেশেই) মেয়েদের খেলা স্বচক্ষে ধোনি-কোহলি-শাকিব’দের ম্যাচ থামিয়ে দেখেছেন? তারা কি আদৌ জানেন তাদের দেশে কোন কোন মহিলা ক্রিকেটার রয়েছেন, তাদের নাম কি? জানেন, মহিলা ক্রিকেটে ভারত ‘আন্তর্জাতিক স্তরে’এ কত নম্বর পজিশনে রয়েছে এই মুহুর্তে? বিরাট কোহলির কুকুরের নাম সবাই জানেন, মহেন্দ্র সিং ধোনির মেয়ে তার বাবাকে কিভাবে ‘ফ্লাইং কিস’ দিল তার ছবি নেটে ভাইরাল! হালফিলের মহম্মদ শামি কবে তার পরবর্তী বিয়ের খবর দিচ্ছে, সেই খবরে মিনিটে হাজার ‘ভিউয়ারস’!

    মহিলা ক্রিকেট দলের একতা বিস্ত বা পুনম যাদবের মতো বোলাররা কোন হাতে ‘বোলিং’ করেন জানেন? দলের অল-রাউন্ডার যে কোনো একজন ক্রিকেটারের নাম বলতে পারবেন? টেস্ট এবং টি-২০ দলের ক্যাপ্টেন কে জানেন?  এটা নিশ্চয়ই জানবেন, এরকম আরও হাজারটা প্রশ্ন আপনার বিবেক-বুদ্ধির বিরুদ্ধে ছুঁড়ে দেওয়া যেতে পারে। জানি ‘সবকিছুরই নির্দিষ্ট সময় লাগে’ এটাই বলবেন। তাহলে আর কি! এবার শুরু করুন…জানুন, যে মেয়েরা এশিয়া কাপ জিতে দেশের জন্যে ‘সম্মান’ বয়ে আনলেন, ম্যাচ প্রতি তাঁদের পারিশ্রমিকের অঙ্ক তুলনায় কতটা অসম্মানজনক! জানুন, বাংলাদেশ-ভারত-ইরান-পাকিস্তান-আয়ারল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া এরকম আরও আরও দেশে খেলা কতটা লিঙ্গ বৈষম্যের শিকার! জেনে নিন, কীভাবে উগ্র জাতীয়তাবাদ পিতৃতন্ত্র এবং কালচারাল ফিন্যান্স, ক্যাপিটালিস্ট মিডিয়ামকে মাস মিডিয়ার সাথে মিশিয়ে তার প্রসার-প্রচার ঘটায়। পুঁজিবাদ, রাষ্ট্রবাদ ও পিতৃতন্ত্রের অসাধু চক্র কীভাবে দিনের পর দিন ‘জেন্ডার ইকুয়ালিটির’ ঝান্ডা উড়িয়ে প্রত্যেকটি প্রচলিত খেলায় একটা ‘ফেমিনিন ভার্সন’ তৈরী করে! মহিলা ক্রিকেটে ক্রিকেটাররাই যেন হয়ে ওঠে্ন যৌন ‘কমোডিটি’ বা ‘ভোগ্যপণ্য’!

    ২০০৬’এ যখন জাফার পানাহি ‘অফসাইড’ বানিয়েছেন, তার ছবিতেও উঠে এসেছে একই প্রেক্ষিত। সেখানেও দেখা যাচ্ছে, যারা নিয়মের ‘সিসি ক্যামেরার’ আটকে রয়েছে, তারা কীভাবে এক এক করে নসাৎ করছেন বিধি-আইন-কায়দা-প্রভুত্ব-নিয়ন্ত্রণ-আধিপত্য-রীতি-অপশাসন-পদ্ধতি। চিন্তা নেই বাংলারই হোক অথবা বিশ্বের, বাঘিনীরা প্রকৃতই জানে ‘প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে সংগ্রাম’এর অর্থ। তারা ইতিমধ্যেই অপ-নিয়মের বিরুদ্ধে জেহাদ ঘোষণা করে বেরিয়ে পড়েছেন ।তারা প্রত্যেকেই ‘অফসাইডার’, নিয়মবিরুদ্ধ অবস্থান গ্রহণকারী।

    (মৌনী মণ্ডল ) 

    LEAVE A REPLY