বকেয়া ডিএ নিয়ে স্বাগত মুখ্যমন্ত্রীর সিদ্ধান্ত !

    0
    12741

    খোঁজখবর ওয়েবডেস্ক ঃ   জানুয়ারি থেকে বকেয়া ডিএ দেওয়া হবে। মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণাকে স্বাগত জানিয়েছে কর্মী সংগঠনগুলি। এটা বামপন্থী কর্মী সংগঠনের জয় বলেও দাবি করা হয়েছে। এটা নতুন কিছু নয়। এই হারে ডিএ কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মীরা তিনবছর আগে থেকেই পেয়ে আসছেন বলে জানিয়েছেন, কর্মী সংগঠনের এক নেতা মলয় মুখোপাধ্যায়।

    নতুন বছরের শুরুতেই কৃষকদের মতো এবার সরকারি কর্মচারীদের ক্ষেত্রেও ‘কল্পতরু’ হয়ে উঠলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বর্ধিত বকেয়া ডিএ জানুয়ারি মাসের মধ্যেই মিটিয়ে দেওয়ার কথা ঘোষণা করলেন তিনি। বৃহস্পতিবার ইলামবাজারের ভিআইপি মোড়ের সরকারি জনসভায় তিনি বলেন, টাকা নেই। তা সত্ত্বেও বাদবাকি ডিএ জানুয়ারিতেই দিয়ে দেওয়া হচ্ছে সরকারি কর্মচারীদের। এই ঘোষণার পরেই কার্যত উৎসবের পরিবেশ রাজ্যের লক্ষ লক্ষ সরকারি কর্মচারী, শিক্ষক ও পেনশন প্রাপকদের পরিবারে। এদিন ডিএ ঘোষণার পরই সিপিএম, বিজেপি আর কংগ্রেসকে একসুরে আক্রমণ করেছেন মমতা। তাঁর কথায়, কেউ কেউ চিৎকার করে বলছে দাও দাও। তুমি তো ৩৪ বছর ছিলে। তখন কী চোখে দেখনি, কানে শোনোনি! আর কেন্দ্রীয় সরকার সে তো আগেও ছিল, এখনও রয়েছে, কী দিয়েছে? উল্টে সব কেড়ে নিচ্ছে। রাজনৈতিক মহলের মতে, লোকসভা ভোটের আগে এই ঘোষণায় কৃষকদের মতোই সরকারি কর্মচারীদের কাছেও নিজেকে আরও গ্রহণযোগ্য করে তুললেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রীর এই ঘোষণায় বিরোধী বিজেপি, বাম আর কংগ্রেসের ডিএ অস্ত্র ভোঁতা হয়ে গেল। নবান্ন সূত্রে জানা গিয়েছে, বর্ধিত ডিএ মেটাতে রাজ্য কোষাগার থেকে অতিরিক্ত সাড়ে ৭ হাজার কোটি টাকা খরচ হবে।

    রাজনৈতিক মহলের ব্যাখ্যা, প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকার কৃষকবন্ধু প্রকল্প ঘোষণা করে ইতিমধ্যেই রাজ্যের ৭২ লক্ষেরও বেশি কৃষক পরিবারের কাছে নিজের ও সরকারের ভাবমূর্তি আরও উজ্জ্বল করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবার সরকারি কর্মচারীদের দীর্ঘদিনের দাবি মুখ্যমন্ত্রী মেনে নেওয়ায় প্রায় ১৪ লক্ষ সরকারি কর্মচারী ও তাঁদের পরিবারকেও কাছে টেনে নিলেন মুখ্যমন্ত্রী। এ জন্য উপকৃত হবেন পেনশন প্রাপকরাও। তিনি যে এই ইস্যুতে বিরোধীদের এক ইঞ্চি জমিও ছাড়বেন না, এদিনই তা স্পষ্ট করে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, কেন্দ্রীয় সরকার নানা ট্যাক্স বাবদ এখান থেকে ৪০ হাজার কোটি টাকা নিয়ে যাচ্ছে। সুদের টাকা কেটে নিচ্ছে, বদলে ৮-১০ হাজার কোটি টাকা দিচ্ছে। তাও বড় বড় কথা!
    রাজ্যের বেকারদের জন্যও এদিন আশ্বাসবাণী শুনিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, যেখানে সব রাজ্যে কর্মসংস্থানের হার কমেছে, সেখানে আমাদের বেড়েছে ৪০ শতাংশ। একটু অপেক্ষা করুন, হতাশ হবেন না, চাকরি পাবেন। এখানে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম কয়লা প্রজেক্ট হবে, এক লক্ষ মানুষের চাকরি হবে।

    LEAVE A REPLY