রেলের ‘হেরিটেজ’ তকমা জুবিলি ব্রিজকে

    0
    64

    খোঁজখবর ওয়েব ডেস্ক : ১৩১৪১ তিস্তা-তোর্সা এক্সপ্রেসকে পার করে ১২৯ বছরের কর্মজীবন থেকে অবসর নিয়েছিল ব্যান্ডেল ও নৈহাটি মধ্যে সংযোগরক্ষাকারী এই রেল ব্রিজ। হুগলি নদীর দু’পাড়ের মধ্যের সংযোগরক্ষার প্রথম স্থায়ী সেতু এই জুবিলি ব্রিজই। দু’বছর আগে ফ্রেব্রুয়ারীর ১৬ তারিখে শেষবার ট্রেন চলেছিল জুবিলি ব্রিজের উপর দিয়ে। এই সেতুকেই এ বার হেরিটেজ তকমা দিতে চলেছে ভারতীয় রেল।

    ইংল্যান্ডের রানি ভিক্টোরিয়ার সিঙ্ঘাসন আরোহনের ৫০তম বছরপুর্তি উপলক্ষে ১৮৮৭ সালে এই সেতু জনসাধারনের জন্যে খুলে দেওয়া হয়েছিল। রানির শাসনের সুবর্ণ জয়ন্তীর বছরে ব্রিজের উদ্বোধন বলেই এর নাম ‘জুবিলি’ ব্রিজ। লন্ডন টাওয়ার ব্রিজের প্রধান প্রজুক্তিবিদ জন উল্ফ ব্যারির ভাইপো আর্থার জন ব্যারি ছিলেন এই সেতুর নকশা তৈরীর প্রধান প্রযুক্তিবিদ। চারশো মিটারের বেশি দীর্ঘ এই ক্যান্টিলিভার-ট্রুস ব্রিজ তৈরিতে কোনো নাটবল্টু ব্যাবহার হয়নি।

    এই ব্রিজের পাশেই ২৯০ কোটি টাকা ব্যয়ে সিডনি হারবার ব্রিজের মতো দেখতে ৪১৭ মিটার দীর্ঘ একটি রেলব্রিজ তৈরি করেছে ভারতীয় রেল। নাম দেওয়া হয়েছে ‘সম্প্রীতি’। তবে,পুরোনো এই ব্রিজের ঐতিহ্য , ঐতিহাসিক গুরুত্বের কথা মাথায় রেখে এই সেতুকে জনসাধারনের আকর্ষনের বস্তু হিসাবে তুলে ধরার পরিকল্পনা নিয়েছে রেল।

     

    LEAVE A REPLY