বঙ্গে মারণ মেঘের বজ্র সন্ত্রাস

    0
    116

    খোঁজখবর ওয়েবডেস্ক : সন্ত্রাস ! এবার মানুষের পর প্রকৃতি। সন্ত্রাস চালাচ্ছে বজ্রগর্ভ মেঘ৷ বাড়ছে বজ্রপাতে মৃত্যুর ঘটনা৷ শুধু চলতি বছরেই রাজ্যে বাজ পড়ে প্রায় ২৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার শুধু বাঁকুড়াতেই মৃত্যু হয়েছে ৪ জনের। রাজ্যের অন্য অংশে বজ্রপাতের বলি আরও ৫ । রবিবার দুপুরে দক্ষিণ কলকাতার রবীন্দ্র সরোবরে ক্যালকাটা ক্রিকেট কোচিং ক্যাম্পের মাঠে প্র‌্যাকটিস চলাকালীন বজ্রপাতে মাঠেই মৃত্যু হয় ক্রিকেটার শ্রীরামপুরের দেবব্রত পালের। ওইদিন দুপুরে একডালিয়ার একটি তিন তলা বাড়ির উপর এসি মেশিনে বাজ পড়ে আগুন লেগে যায়। ভস্মীভূত হয়ে যায় তিন তলার একাংশ। শহরেও বাড়ছে বজ্রাপাতের ঘটনা। এই পরিস্থিতিতে বাজ থেকে বাঁচতে থার্টি-থার্টি রুল মেনে চলার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা৷

    আগেও বজ্রপাতে মৃত্যু হত গ্রাম-বাংলায়৷ এখনও হয়৷ তবে সংখ্যাটা অনেক বেড়ে গিয়েছে৷ মন্দিরের চাতাল থেকে খেলার মাঠ, চাষের জমি থেকে স্টেশন চত্বর, সর্বত্রই বজ্রপাতে মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে৷ ঝড়-বৃষ্টি হলেই মৃত্যুর ঘটনা ঘটছে৷বজ্রপাতের কারণ নিয়ে সর্বপ্রথম গবেষণা করেন গ্রিক দার্শনিক অ্যারিস্টটল৷ তিনি বলেছিলেন, মেঘে মেঘে ঘর্ষণেই বিদ্যুৎ উৎপন্ন হয়৷ পরে অবশ্য আরও অনেক তত্ত্ব এসেছে৷ তবে মোদ্দা কথা হল, মেঘের রাজ্যে থাকা বজ্র-নালায় হঠাৎ করে তাপমাত্রা বেড়ে ২০,১০০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেডের মতো হয়ে যায়৷ তৈরি হয় এক ধরনের শক-ওয়েব, যা তাপমোচনের জন্য ঠান্ডা বাতাসের খোঁজে নিচের দিকে নেমে আসে৷ এই ‘শক-ওয়েভ’-ই বাজ৷ সমস্যা হয় তখন, যখন তাপমোচনের পথে হঠাৎ‍ করে চলে আসে গরম উষ্ণ জলীয় বাষ্পপূর্ণ বাতাস৷ তখন সংঘর্ষ হয়৷ বিকট শব্দে বজ্রপাত হয়৷

    বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, বর্ষা আসার আগে ঘূর্ণাবর্ত বা নিম্নচাপের জেরে স্থানীয়ভাবে যে মেঘের সঞ্চার হচ্ছে তাতে ‘তড়িৎ’ খুব বেশি থাকে৷ এই মেঘগুলির উচ্চতা খুব বেশি হয়৷ উপরিভাগ দেখতে অনেকটা কুড়ুলের মতো৷ এই মেঘ বৃষ্টি হয়ে ঝরে পড়ার সময়ই ওই স্থির তড়িৎ পরিবর্তিত হয় বজ্রে৷ আবহাওয়া বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, প্রাক বর্ষা বা তার আগে স্থানীয়ভাবে তৈরি হওয়া মেঘে জলকণা কম থাকে৷ তড়িৎকণা বেশি থাকে৷ যা থেকে উৎপাদিত বিদ্যুতের পরিমাণ ১০-১২ মেগাওয়াট৷ বর্ষার মেঘেও বিদ্যুৎ থাকে৷ তবে কয়েক হাজার গুণ কম৷ প্রায় ১০৮ মেগাওয়াট৷ এই মেঘে জলকণাই বেশি থাকে৷ তাই বর্ষার মেঘকে জলভরা মেঘও বলা হয়৷ এই জলভরা মেঘের উচ্চতাও খুব কম হয়৷ তাই, বর্ষা না আসা পর্যন্ত সাবধানে থাকার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা৷

    LEAVE A REPLY