২০১৮-১৯ অর্থবর্ষের বাজেটের উল্লেখযোগ্য ১০ টি প্রস্তাব

খোঁজখবর ওয়েব ডেস্ক : আজ বিধানসভায় ২০১৮-১৯ অর্থবর্ষের বাজেট পেশ করলেন অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র। বাজেটে সামাজিক কল্যাণ ও কর্মসংস্থান সৃষ্টি থেকে কৃষক, চা বাগান কর্মী, নারী ক্ষমতায়ন, প্রতিবন্ধী মানুষ সহ সকলের জন্য বেশ কয়েকটি পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।আজ বাজেটে ‘মানবিক’ ও  ‘রূপশ্রী’ এই দুই নতুন প্রকল্পের ঘোষণা করলেন অমিত মিত্র।

বাজেটের উল্লেখযোগ্য কিছু প্রস্তাবঃ

  • বিগত ৬ বছরে আমরা কৃষিতে অনেক উন্নতি করেছি। খাদ্যশস্য উৎপাদনে আমরা নতুন নজির গড়েছি। শাক সবজি উৎপাদনে দেশের মধ্যে প্রথম স্থান ও আলু উৎপাদনে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছে বাংলা। কৃষকরা যাতে দ্রব্যের ন্যায্য মূল্য পান সেজন্য বিশেষ তহবিল গঠন করা হবে। এর জন্য ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হবে।
  • বয়স্ক কৃষক ও তাদের পরিবারের সাহায্যের জন্য রাজ্য বার্ধক্য ভাতা প্রদান করে। বর্তমানে গড়ে ৬৬০০০ কৃষক ভাই-বোনেরা এই প্রকল্পে মাসে ৭৫০ টাকা পেনশন পান। এই পেনশন ৭৫০ থেকে বাড়িয়ে ১০০০ করার প্রস্তাব দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া এই ভাতা প্রাপকদের সংখ্যা ৬৬০০০ থেকে বাড়িয়ে ১ লক্ষ করার প্রস্তাব দিচ্ছি। ফলে আরও ৩৪০০০ কৃষক এই পেনশন লাভ করবে।
  • বাংলার মেয়েদের শিক্ষার উন্নতি, প্রশস্তি ও প্রগতির জন্য মুখ্যমন্ত্রীর একান্ত নিজস্ব উদ্যোগে কন্যাশ্রী প্রকল্প এগিয়ে চলেছে। এই প্রকল্পে রাজ্য বছরে ১২০০ কোটি টাকা ব্যয় করে। সমাজ সংস্কার গঠনের ক্ষেত্রে এটি একটি ঐতিহাসিক পদক্ষেপ। কন্যা সন্তানদের শিক্ষা আরও উন্নতির লক্ষ্যে তাদের বার্ষিক বৃত্তির পরিমাণ ৭৫০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১০০০ টাকা করার প্রস্তাব করা হচ্ছে। এর ফলে রাজ্যের লক্ষ লক্ষ মেয়ে উপকৃত হবে।
  • অনেক গরীব পরিবার মেয়ের বিবাহের খরচ জোগাড় করতে অসুবিধায় পড়েন। আমাদের সরকার সেইসব অসহায় পরিবারের পাশে দাঁড়িয়ে তাদের ভার লাঘব করতে অঙ্গীকারবদ্ধ। যে সকল পরিবারের বার্ষিক আয় দেড় লক্ষ টাকার কম তাদের মেয়েদের ১৮ বছর বয়সের পর বিবাহ হলে আরও একাকালীন ২৫০০০ টাকা সহায়তা পাবে। মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রীর এই স্বপ্নের প্রকল্পের নাম ‘রূপশ্রী’। এই প্রকল্পের জন্য ১৫০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হল। এর মাধ্যমে ৬ লক্ষ পরিবার উপকৃত হবে।
  • যাদের প্রতিবন্ধকতা ৪০% বা তার বেশি রয়েছে তাদের মাসে ৭৫০ টাকা পেনশন দেওয়া হয়, এদের কথা ভেবে নতুন পেনশন প্রকল্প চালু করা হল। এই প্রকল্পের নাম ‘মানবিক’। এই প্রকল্পে ২ লক্ষ মানুষকে ১০০০ টাকা মাসিক পেনশন দেওয়া হবে। এই প্রকল্পের জন্য ২৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হল। এটি মুখ্যমন্ত্রীর নিজস্ব পরিকল্পনায় সৃষ্টি।
  • ২০১৮-২০১৯ অর্থবর্ষের জন্য ২,১৪,৯৫৮.৭৫ কোটি টাকা বাজেট বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে।
  • মা মাটি মানুষের সার্বিক উন্নয়নের প্রধান লক্ষ্য আরও বেশি কর্মসংস্থান সৃষ্টি। ২০১৭-২০১৮ অর্থবর্ষে পরিকল্পনাহীন ও তাড়াহুড়ো করে চালু করা জিএসটি ও নোট বাতিলের ধাক্কা সত্ত্বেও আমরা রাজ্যে ৮,৯২,০০০ কর্মসংস্থান সুনিশ্চিত করতে পেরেছি।