মদ্দপ অবস্থায় উদ্ধার যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী

    0
    1331

    খোঁজখবর ওয়েবডেস্ক ঃ  যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের সুবর্ণজয়ন্তী ভবনে মঙ্গলবার বেহুঁশ অবস্থায় উদ্ধার করা হল এক মদ্ধপ ছাত্রীকে। পরে তাঁকে কিছুটা সুস্থ করে বাড়ি পাঠিয়ে দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। সেই ছাত্রী মদ্যপান করেছিলেন বলে প্রাথমিক তদন্তে উঠে এসেছে। বুধবার ডিন অব আর্টস শুভাশিস বিশ্বাস বলেন, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এক ছাত্রী বেহুঁশ অবস্থায় পড়ে রয়েছে বলে খবর আসে। সবাই জানায়, সে মদ্যপান করে ওখানে পড়েছিল। তার সঙ্গে আরও কয়েকজন ছিল। কিন্তু তারা সেখান থেকে পালিয়ে যায়। এই ঘটনার প্রেক্ষিতে কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে পারে বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন সহ উপাচার্য প্রদীপ ঘোষ। বলা বাহুল্য, ঘটনাটি নিয়ে বেশ শোরগোল পড়েছে ক্যাম্পাসে।
    বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রের খবর, মঙ্গলবার চার নম্বর গেটের কাছে সুবর্ণজয়ন্তী ভবনের তিনতলায় ইংরেজি অনার্সের প্রথম বর্ষের এক ছাত্রী অচৈতন্য অবস্থায় পড়ে রয়েছে বলে খবর যায় কর্তৃপক্ষের কাছে। তাৎপর্যপূর্ণ বিষয় হল, এখন বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা চলছে। তা সত্ত্বেও ক্যাম্পাসের মধ্যে এমন অবস্থায় ছাত্রী উদ্ধার হওয়ার ঘটনায় স্বভাবতই চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। খবর পেয়ে রেজিস্ট্রার স্নেহমঞ্জু বসু এবং আরও কয়েকজন সেখানে গিয়ে ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করেন। অতিরিক্ত মদ্যপানের ফলে ছাত্রীটির এই অবস্থা হয়েছে, এমন খবর ততক্ষণে ছড়িয়ে পড়েছে। রেজিস্ট্রার বলেন, আমরা গিয়ে ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করি। তাঁকে প্রাথমিক সুশ্রূষা দিয়ে কিছুটা সুস্থ করে তোলার পর বাড়ি ফেরার ব্যবস্থা করা হয়। ওই ছাত্রীর বন্ধুরাই সেই উদ্যোগ নেন। তাঁর নাম ও রোল নম্বর লিখে রাখা হয়েছে।
    ছাত্রীটি জানিয়েছে ‘অ্যাংজাইটি অ্যাটাক’ হয়েছিল বলে, এমনটাই দাবি করেছে কর্তৃপক্ষ। রেজিস্ট্রারের কথায়, আমি সেখানে কোনও মদের বোতল পাইনি। গন্ধও মেলেনি। তিনি এ কথা বললেও এদিন প্রত্যেক বিভাগীয় প্রধান এবং ডিনকে স্পষ্ট করে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, সন্ধ্যার পর যেন কোনও ছাত্রী ক্যাম্পাসে না থাকে। এমন কিছু যাতে আর না ঘটে, সে ব্যাপারে বিভাগীয় প্রধানদের দেখতে হবে। তাছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ে কোনও পড়ুয়া অসুস্থ হয়ে পড়লে, তাঁর অভিভাবককেও দ্রুত জানিয়ে দেওয়া হবে। এমনকী বিষয়টি আর্টস ফ্যাকাল্টি কাউন্সিলের বৈঠকে আলোচনা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। সেখানে এমন কাণ্ডের নিন্দাও করা হয়েছে। এ নিয়ে তদন্ত কমিটি গড়া হতে পারে বলেও শোনা যাচ্ছে।
    বিশ্ববিদ্যালয়ে মদ্যপানের সমালোচনা করেছে সাধারণ পড়ুয়াদের একাংশ। তাঁদের মতে, এখানে পড়াশোনা করতে আসি আমরা। কেউ চাইলে নেশা করতেই পারে। কিন্তু তা ক্যাম্পাসের মধ্যে কেন? দেশে যাদবপুরের যে খ্যাতি আছে, তা এসব অবাঞ্ছিত ঘটনার জন্য খারাপ হতে বসেছে। ফলে ছাত্রছাত্রীদের আরও বেশি সাবধানী হওয়া দরকার। ক্যাম্পাসের মধ্যে মদ্যপান সহ কোনও নেশা করা যাবে না বলে অক্টোবর মাসে বিজ্ঞপ্তি দিয়েছিল কর্তৃপক্ষ। কিন্তু তারপর কিছুদিন কঠোর মনোভাব দেখানোর পর সেই গাছাড়া ভাব দেখা যাচ্ছে বলে অভিযোগ অধ্যাপকদের একাংশের। তারই ফলস্বরূপ এই ঘটনা, এমনটাই মত বিশ্ববিদ্যালয়ের একাংশের।

    LEAVE A REPLY