জায়গা বদল হতে পারে মহম্মদ আলি পার্কের পুজোর
  • 1092 Views
  • 4 months ago
  • খোঁজখবর

খোঁজখবর,ওয়েবডেস্কঃমহম্মদ আলি পার্কের পুজো রাজ্যবাসীর কাছে অন্যতম দ্রষ্টব্য। কিন্তু অনেকেই জানেন না, ওই পার্কে একটি ভূগর্ভস্থ বড় জলাধার রয়েছে। ব্রিটিশ আমলে তৈরি ওই জলাধার ইটের কাঠামো দিয়ে তৈরি। কালের নিয়মে সেই কাঠামো অনেকটাই দুর্বল হয়ে পড়েছে। মাসখানেক আগে আচমকা জলাধারের চারপাশে থাকা ইটের পাঁচিলের কিছুটা অংশ ভেঙে যায়। জল বেরিয়ে ভাসিয়ে দেয় মহম্মদ আলি পার্ক চত্বর। যা ছড়িয়ে পড়ে লাগোয়া চিত্তরঞ্জন অ্যাভিনিউয়ে। পুরসভার পার্ক ও উদ্যান দফতরের মেয়র পারিষদ দেবাশিস কুমার জানান, তার পরেই পার্ক এবং জল সরবরাহ দফতরের ইঞ্জিনিয়ারেরা গিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেন। পরে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষজ্ঞদের দিয়ে সমীক্ষা করানো হয়। তাঁরা ওই জলাধারের ইট নিয়ে গিয়ে পরীক্ষা করেন। পরে পুর প্রশাসনকে বিশেষজ্ঞেরা জানান, জলাধারের ইটের কাঠামো খুবই দুর্বল হয়ে পড়েছে। অবিলম্বে তা নতুন করে তৈরি করতে হবে। আর সেই সময়ের মধ্যে পার্কের উপরে কোনও রকম চাপ দেওয়া চলবে না। তা হলে, জলাধারের বাকি অংশও ভেঙে পড়তে পারে।

যাদবপুরের ওই সতর্কবার্তা পেয়ে সমস্যায় পড়ে পুর প্রশাসন। এর পরেই মেয়র ফিরহাদ হাকিম পার্ক পরিদর্শনের সিদ্ধান্ত নেন। সম্প্রতি মেয়র এবং দেবাশিসবাবু মহম্মদ আলি পার্কে গিয়ে পুজো কমিটির সদস্যদের সঙ্গে এক বৈঠক করেন। সেখানেই মেয়র তাঁদের জানান, পার্কের যা অবস্থা তাতে সেখানে এ বার পুজো করা খুব বিপজ্জনক হবে। যাদবপুরের বিশেষজ্ঞেরাও বলেছেন, জলাধার সংস্কার না করে পার্কের উপরে চাপ দেওয়া চলবে না। বৃহস্পতিবার ফিরহাদ জানান, মহম্মদ আলি পার্কের পুজো দেখতে সারা রাজ্য থেকে কয়েক লক্ষ মানুষ আসেন। তাই পুজো কমিটির কর্তাদের অনুরোধ করা হয়েছিল, এ বারের মতো পুজোর জায়গা বদল করলে ভাল হয়। তিনি আরও জানান, জলাধারের কাঠামো নতুন তৈরি করতে কয়েক মাস সময় লাগবে। কিন্তু আর দু’মাস পরেই পুজো। তাই জায়গা বদলের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।