নির্মল বাংলা মিশন – গ্রাম বাংলার অহংকার

    0
    207

    খোঁজখবর ওয়েব ডেস্ক :  গত ২০১৩ সালের ১৯শে নভেম্বর (ওয়ার্ল্ড টয়লেট ডে) পশ্চিমবঙ্গে নির্মল বাংলা মিশন চালু হয়। গত সাড়ে চার বছরে ৮টি জেলা, ২,২৬৬টি গ্রাম পঞ্চায়েত, ২৮,১০২টি গ্রাম নির্মল হয়েছে। এই উদ্যোগ পেয়েছে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি।নদীয়া জেলা দেশের প্রথম নির্মল জেলা ঘোষিত হয়। ৩১শে জানুয়ারি ২০১৮ পর্যন্ত আরও যে সাতটি জেলা নির্মল জেলা ঘোষিত হয়েছে, সেগুলি হল, হুগলী, উত্তর ২৪ পরগনা, পূর্ব মেদিনীপুর, দক্ষিণ ২৪ পরগনা, কোচবিহার, পূর্ব বর্ধমান, পশ্চিম বর্ধমান। মালদা ও হাওড়া জেলা খুব শীঘ্রই নির্মল জেলা হিসেবে স্বীকৃতি পেতে চলেছে। তারপর দক্ষিণ দিনাজপুর, বীরভূম ও মুর্শিদাবাদকেও নির্মল জেলা ঘোষণা করা হবে।২০১৮-১৯ সালে বাকি জেলাগুলিকেও নির্মল জেলা ঘোষণা করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।গত চার বছরে ৫৮,৭৩,৫৪০ বাড়িতে শৌচাগার নির্মাণ হয়। জনসাধারণের জন্য ১,৬০৮টি শৌচাগার তৈরী হয়েছে। এই শৌচাগার নির্মাণে বিজ্ঞানসম্মত ভাবে কঠিন ও তরল বর্জ্য ব্যবস্থাপনার দিকেও নজর রাখা হয়েছে।গত কয়েক বছরে এই প্রকল্পে বরাদ্দ সমানে বেড়েছে। ২০১২-১৩ সালে ২৫৪.৪১ কোটি টাকা থেকে ২০১৭-১৮ সালে এই বাবদ বরাদ্দ বেড়ে হয় ২৬৬১.২৫ কোটি টাকা। যদিও, এই সময়ে এই প্রকল্পে কেন্দ্রের অনুদান ৭৫:২৫ থেকে কমে ৬০:৪০য়ে এসে দাঁড়িয়েছে।গ্রাম পঞ্চায়েত অঞ্চলে ৫০০টি অতিরিক্ত সাধারণ শৌচাগার তৈরীর পরিকল্পনা দপ্তরের। এছাড়া আরও ৫০০টি গ্রাম পঞ্চায়েত অঞ্চলে কঠিন ও তরল বর্জ্য ব্যবস্থাপনার দিকেও নজর দেওয়া হবে। নজর দেওয়া হচ্ছে প্রচারমূলক কর্মসূচিতেও।

    LEAVE A REPLY