ডেঙ্গি মোকাবিলা কার কাজ?

    0
    17

    রাজ্য জুড়ে যখন ডেঙ্গির দাপট, তখন রোগের প্রকোপের কথা মানতেই নারাজ ছিল তাঁর সরকার। মুখ্যমন্ত্রীই বলেছিলেন, ডেঙ্গি নিয়ে গুজব এবং আতঙ্ক ছড়ানো হচ্ছে। অন্য দিকে তথ্য এমনকী ডেঙ্গিতে মৃত্যুর ঘটনাও আড়াল করার পাল্টা অভিযোগ তুলেছিলেন বিরোধীরা। ডেঙ্গি প্রসঙ্গ তুলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বললেন, রোগ মোকাবিলায় পঞ্চায়েত দফতরের ভূমিকায় তিনি খুশি নন। তখন তাঁর ঠিক পাশে বসে রাজ্যের পঞ্চায়েতমন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়। ঘর ঠাসা নেতা-মন্ত্রী-আমলা, বিভিন্ন দফতরের কর্মী অফিসারে।এ দিন বৈঠকে নদিয়া জেলাশাসক সুমিত গুপ্তকে ডেঙ্গি নিয়ে প্রশ্ন করেন মমতা। জানতে চান, জেলা নজরদারি কমিটি এ ব্যাপারে কতটা কাজ শুরু করেছে। জেলাশাসক কিছুটা উত্তর দেওয়ার পরেই মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‘আরবান ডেভেলপমেন্ট তবু ভাল কাজ করেছে, কিন্তু পঞ্চায়েত ভাল করেনি। ‘সরি টু সে’ সুব্রতদা, পঞ্চায়েত মনিটরিং করছে না।’’অর্থাৎ, মমতার কাছে ডেঙ্গি মোকাবিলায় ফিরহাদ (ববি) হাকিমের দফতর পুরো নম্বর পেলেও সুব্রতবাবুর দফতর ফেল!কৃষ্ণনগর সার্কিট হাউসে বৈঠকের ভিতরেই তখন ফিসফাস শুরু হয়ে গিয়েছে। উপস্থিত নেতা-অফিসারেরা বলছেন, ডেঙ্গি মোকাবিলা কার কাজ? মমতার নিজের নিয়ন্ত্রণে থাকা স্বাস্থ্য দফতরের, না কি পঞ্চায়েত দফতরের? মুখ্যমন্ত্রীর সামনে এ ব্যাপারে কোনও মন্তব্য করেননি সুব্রতবাবু। তবে বৈঠকের পরে ফোন করা হলে তিনি বলেন, ‘‘ডেঙ্গি নিয়ন্ত্রণ আমাদের কাজ নয়। মুখ্যমন্ত্রী হয়তো চাইছেন পঞ্চায়েতও যেন এ ব্যাপারে একটু এগিয়ে আসে। বাকিটা আপনাদের যা মনে হয়, লিখে দিন!’’প্রশাসনের একটা বড় অংশের মতে, গত বছরের শেষ কয়েকটা মাসে রাজ্যে যখন ডেঙ্গির রমরমা, তখন রোগ মোকাবিলার বদলে তা অস্বীকার করতেই ব্যস্ত ছিল সরকার। এ নিয়ে কেন্দ্রের স্বাস্থ্য মন্ত্রকের সঙ্গে চাপানউতোর থেকে শুরু করে হাইকোর্টে মামলা পর্যন্ত হয়। কিন্তু সরকারই যে হেতু ডেঙ্গির প্রকোপ মানতে নারাজ ছিল, ফলে তার প্রতিরোধে কোমর বেঁধে নামেনি প্রশাসনও। তখন গ্রামের রাস্তায় ব্লিচিং ছড়ানোর নাম করে আটা ছড়ানোর খবর করেছিল আনন্দবাজার। মুরগিতে খেয়ে গিয়েছিল সেই আটা।

    LEAVE A REPLY