কোচ হওয়খ পথে মাশরাফি

    0
    442

    খোঁজখবর ওয়েব ডেস্ক : বাংলাদেশ ওয়ানডে ক্রিকেট দলের সর্বকালের সেরা অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা।  অভিষেকের ১৮ বছর পরও নির্দ্বিধায় বলে দেওয়া যায় দেশের পেস বোলিং বিভাগের নেতা তিনিই। ইনজুরিতে বার বার মাঠের বাইরে না গেলে হতে পারতেন বিশ্ব সেরাদের একজন। আসন্ন এই বিশ্বকাপই তার  শেষ বিশ্বকাপ । ক্রিকেটের এই মেগা আসরের পরই হয়তো লাল-সবুজের জার্সিতে আর দেখা যাবে না  মাশরাফিকে । তিনি তবে খেলা ছাড়লেও থাকতে চান ক্রিকেটের সাথেই, হতে চান  যুব ক্রিকেটারদের কোচ। এক সাক্ষাৎকারে ক্যাপ্টেন ফ্যান্টাসিক জানিয়েছেন তার ইচ্ছের কথা। আন্তর্জাতিক নয় দেশের ক্রিকেটের পাইপলাইনের দিক নির্দেশক হিসেবেই কোচিং ক্যারিয়ার শুরু করাতেই আগ্রহ ম্যাশের। কথা বলেছেন অলিখিতভাবে সাদা পোশাকে অবসর প্রসঙ্গেও।২০০১ সালে বাংলাদেশের জার্সিতে অভিষেক হওয়া মাশরাফি গত ১৮ বছর ধরে দেশের সেরা পেসারের ভারসাম্ বজায় রেখেছেন। বারবার চোটে পড়ে, সাতবার গুরুতর সার্জারির পরেও ফিরে এসেছেন ক্রিকেটকে ভালোবেসে। তার নেতৃত্বে বদলে গেছে দেশের ক্রিকেট। এমন প্রেক্ষাপটে খেলোয়াড়ি জীবনকে বিদায় জানানোর দ্বারপ্রান্তে দাঁড়িয়েও মাশরাফি বলছেন ক্রিকেট তার আবেগের জায়গা। খেলা ছাড়লেও কোচিং দিয়ে থাকতে চান ক্রিকেটের সাথেই।সুযোগ থাকলে কোচিং করাতে চাই, সেটা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নয়। এইচপি কিংবা উঠতি তরুণ ক্রিকেটারদের নিয়ে কাজ করতে চাই। ক্রিকেটতো আসলে আমার আবেগের জায়গা। ২০০৯ সালে ক্যারিবিয়ান সফরে অধিনায়ক হিসেবে প্রথম টেস্টেই চোটে পড়ে সেই যে বাইরে গেলেন, সাদা পোশাকে আর ফেরা হয়নি ম্যাশের। ৩৪ বছর বয়স পার করা মাশরাফি টি-টোয়েন্টি থেকে আনুষ্ঠানিক বিদায়  ঘোষণা দিয়ে অবসরে যাননি টেস্ট থেকে। তবে বয়স আর ফিটনেস বিবেচনায় মাশরাফি নিজেই জানালেন সাদা পোশাকে ফেরার সম্ভাবনা শূন্যের কোঠাতে, ‘এখন ওয়ানডে খেলছি। বলা যায় সবধরনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটেই বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করা থেকে অচিরেই নিজেকে সরিয়ে নিচ্ছেন মাশরাফি। নিজের শেষ বিশ্বকাপের সাথে তবে কি শেষ বলা যায় দেশের সফল এই অধিনায়কের ক্যারিয়ারও? সেটার উত্তর মিলবে ঠিক সময়মতই।

    LEAVE A REPLY