তল্লাশির নামে গ্রামে চলছে সন্ত্রাস

    0
    99

    কৌশিক অধিকারী, জয়নগরঃ তল্লাশির নামে গ্রামে ঢুকে একের পর এক বাড়ি ভাঙচুরের পাশাপাশি গ্রামের নিরীহ মানুষদের উপর হামলার অভিযোগ উঠলো জয়নগর থানার পুলিশের বিরুদ্ধে। এই ঘটনায় আতঙ্ক ছড়িয়েছে এলাকায়। ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ ২৪ পরগনার জয়নগর থানার অন্তর্গত চালতাবেরিয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের গাজী পাড়ায়। বৃদ্ধা মহিলা সহ মারধর করা হয় এক অন্তঃসত্ত্বা মহিলাকে ও। শুক্রবার বিকেলে তৃণমূল কংগ্রেসের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষের জেরে এক মহিলার মৃত্যু হয়। সেই ঘটনার পর শুক্রবার রাতে গ্রামে ঢুকে তল্লাশি অভিযান চালায় বিশাল পুলিশ বাহিনী।আসন্ন পঞ্চায়েত ভোটে প্রার্থী দাঁড়ানোকে কেন্দ্র করে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে শুক্রবার। এলাকার ২৩৪ নম্বর বুথের তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী সাইফুল লস্করের সমর্থনে এলাকার তৃণমূল কর্মী নুর ইসলাম গাজী নির্বাচনের প্রচার থেকে শুরু করে দেওয়াল লিখন সবকিছুই করছিলেন। অভিযোগ সেই কারণেই নুর ইসলামকে সাইফুলের হয়ে কাজ করতে বারণ করেন এলাকার তৃণমূলের অপর গোষ্ঠীর লোকেরা।

    তারা সাইফুলের বিরুদ্ধে এলাকায় তৃণমূল সমর্থিত নির্দল প্রার্থী দাঁড় করিয়েছেন। এই কথা না শুনে নূর ইসলাম এলাকায় সাইফুলের হয়েই কাজ করছিলেন বলেই নির্দল প্রার্থী নজরুল গাজী ও তার অনুগামী জালালউদ্দিন গাজীর লোকেরা শুক্রবার বিকেলে চরাও হয় নুর ইসলাম গাজীর বাড়িতে।এলাকায় ব্যাপক বোমাবাজি করে অভিযুক্তরা।এরপর বাড়িতে ঢুকে নূর ইসলামকে লক্ষ্য করে গুলি চালাতে গেলে গুলি লক্ষ্য ভ্রষ্ট হয়ে লাগে নূর ইসলামের বৌমা সেলিমা বিবির বুকে। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় সেলিমার। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায়। খবর পেয়ে জয়নগর থানার বিশাল পুলিশ বাহিনী এলাকায় পৌঁছয়। এই ঘটনার পর শুক্রবার রাতে জয়নগর থানার বিশাল পুলিশ বাহিনী এলাকায় তল্লাশি অভিযানের নামে রাতের অন্ধকারে নিরীহ গ্রামবাসীদের উপর হামলা চালায় বলে অভিযোগ। মারধরের পাশাপাশি ঘরে ঢুকে আসবাব পত্র ও অন্যান্য জিনিষপত্র ভাঙচুর করে। রুকশানা লস্কর নামে এক গর্ভবতী মহিলাকে ও সুফিয়া বিবি নামে এক বৃদ্ধাকে বেধরক মারধরের অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে। অন্যদিকে শুক্রবার এলাকায় গুলি চালানোর ও সন্ত্রাসের ঘটনার অভিযোগে শুক্রবারই দুজনকে গ্রেফতার করেছিল জয়নগর থানার পুলিশ। এই ঘটনায় আরও বেশ কয়েকজনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করছে জয়নগর থানার পুলিশ।

    LEAVE A REPLY