কানের দুলের সাতকাহন

খোঁজ-খবর,ওয়েবডেস্ক :- নিত্যদিনের অফিস যাওয়া থেকে শুরু করে বিয়েবাড়ী হোক বা কোনো ছোটখাটো আউটিং-কানের দুল ছাড়া সমস্ত সাজটাই থেকে যায় বেমানান।তবে উপলক্ষ বদলানোর সাথে সাথে এর আকার,আয়তন,ডিজাইন সবই বদলে যায়।ক্যাজুয়াল সাজের সাথে ছোট স্টাড মানিয়ে গেলেও এথনিক সাজের সাথে কিন্তু বড় দুল-ই ভাল লাগে।আবার বিয়েবাড়ীর ক্ষেত্রে ভারী অ্যান্টিক ডিজাইনের দুলও সাজের সাথে মানিয়ে যায়।মাঝে নকশাদার গলার অলঙ্কারের ভিড়ে কানের দুল একটু পিছিয়ে পরলেও এখন আবার সে নিজের স্বমহিমায় বর্তমান।

সোনার দুলের অপশন তো সবসময় আছেই।কিন্তু সন্ধেবেলা বিয়েবাড়ীতে যদি শাড়ির ম্যাচিং পাথর সেটিং-এর একটা জড়োয়া কানের দুল পান,পরার লোভ সামলাতে পারবেন তো?

বা ধরুন বিয়েবাড়ীর মতো জমকালো সাজ নয়,কিন্তু সকালবেলার কোন অনুষ্ঠানে আপনাকে যেতে হবে।আপনি যদি সুন্দর করে সেজেগুজে সাথে একটা ঝুমকো পরে নেন,আপনার রূপ কিন্তু তাতে খুলবেই খুলবে।

আবার বন্ধুদের সাথে আড্ডা মারতে বা মুভি ডেটে যাওয়ার সময় যদি ড্রেসের ম্যাচিং করে কানে একটা হুপস বা রিং পরে নিতে পারেন,তাহলে তা যেমন আরামদায়কও হয়,আবার আড্ডার মুডের সাথে মানিয়েও যায়।

বিয়েবাড়ীতে এথনিক পোষাক পরলেও সান্ধ্য পার্টিতে আপনার একটা ওয়েস্টার্ন ড্রেস পরার ইচ্ছা হতেই পারে।ড্রেসের সাথে আকদম সাদামাটা দুলও যেমন ভালো লাগে না,তেমন খুব ভারী দুলও পরা যায় না।সেক্ষেত্রে আপনার জন্য অপশন আছে লম্বা জড়োয়ার দুল ট্রাই করার।

তবে অফিসে কাজে যাওয়ার সময়টুকুর জন্য সোনা,হীরে বা অন্য কোন স্টোন সেটিং-য়ের একটা ছোট স্টাড পরে নিলে আর কোন চিন্তা করার দরকার হয়না।