পেট্রোপণ্য জিএসটির আওতায় আনার উদ্যোগ দেখাচ্ছে না কেন্দ্র : রাহুল

    0
    247

    দিল্লি : আকাশ ছোঁয়া জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী৷ বুধবার সাতসকালে সাংবাদিক বৈঠক ডেকে তেলের দাম নিয়ন্ত্রণে কেন্দ্র সরকার পেট্রোপণ্যকে জিএসটির অন্তর্ভুক্ত করার কোনও উদ্যোগ দেখাচ্ছে না, অভিযোগ তোলেন সোনিয়া পুত্র৷ এদিন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী বলেন, ‘‘সাধারণ মানুষের উপর বোঝা বাড়িয়ে দিনে দিনে বেড়েই চলেছে তেলের দাম৷ আমরা বারবার পেট্রোপণ্যকে জিএসটির আওতায় আনার দাবি জানিয়েছি৷ কিন্তু, কেন্দ্রের মোদি সরকার আমাদের কথার কোনও গুরুত্ব দিচ্ছে না৷’’ জ্বালানি যন্ত্রণা নিয়ে রাহুলের প্রশ্ন, যখন দেশজুড়ে ‘এক দেশ, এক কর’ ব্যবস্থা চালু হয়েছে, তখন কোন যুক্তিতে পেট্রোপণ্য এই ব্যবস্থার বাইরে থাকবে? কেন সাধারণ মানুষের ঘাড়ে বাড়তি করের বোঝা চাপানো হবে? আগামী লোকসভা নির্বাচনে বিজেপিকে এর মাশুল দিতে হবে বলে মন্তব্য করেন সোনিয়া পুত্র৷

    জ্বালানি যন্ত্রণা নিয়ে কেন্দ্রকে আক্রমণের পাশাপাশি, ২০১৯-এর নির্বাচনে ‘মহাজোটবন্দন’ তৈরি হবে বলে আশা প্রকাশ করেন কংগ্রেস সভাপতি৷ বলেন, ‘‘এই মুহূর্তে দেশের মানুষ আরএসএস ও বিজেপির উপর ক্ষিপ্ত৷ তার উপর জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি ও গ্যাসের দাম বেড়ে যাওয়ার ঘটনায় আমজনতা বিজেপির উপর আর আস্থা রাখতে পারছে না৷’’একদিকে রাজনৈতিক চাপ ও অন্যদিকে পড়তি অর্থনীতির চাপে পেট্রোপণ্যের দাম কমানোটাই এখন বড় চ্যালেঞ্জ মোদি সরকারের কাছে৷ যদিও, পেট্রোপণ্যের দাম জিএসটির আওতায় আনার দাবি আগেই জানিয়েছিল বিরোধীরা৷ চলতি মরশুমে পেট্রল-ডিজেলের দাম আকাশ ছুঁতে পারে বলে আগেই আশঙ্কা প্রকাশ করেছিল পর্যবেক্ষক মহলের একাংশ৷ কিন্তু, সেই আশঙ্কাকে পাত্তাই দেয়নি কেন্দ্রীয় সরকার৷ উলটে পেট্রোপণ্যের উপর ধার্য এক্সাইজ ডিউটিতে কাটছাঁট করতে রাজিও হয়নি  কেন্দ্র৷ আর্থিক বিষয়ক সচিব সুভাষ চন্দ্র গর্গ আগেই জানিয়েছিলেন, দাম এমন কিছু বাড়েনি যার জন্য কেন্দ্রকে এখনই এক্সাইজ ডিউটি কমাতে হবে৷ আর এই নিয়েই শুরু হয়েছে ‘জ্বালানি-রাজনীতি’৷

    LEAVE A REPLY