দীপিকার বিরুদ্ধে ক্ষোভ

খোঁজখবর ওয়েব ডেস্কঃ দীপিকা পাড়ুকোন শুধু এই প্রজন্মের প্রথম সারির অভিনেত্রী নন, তিনি যুবসমাজের কাছে গুরুত্বপূর্ণ এক কণ্ঠ। হেনস্থার বিরুদ্ধে তিনি বারবার সরব হয়েছেন। মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে সচেতনতা বাড়াতে একটি সংস্থাও খুলেছেন। কিন্তু পরিচালক লব রঞ্জনের ছবিতে সেই অভিনেত্রীই কাজ করবেন শুনে বেজায় রেগে গিয়েছেন তাঁর অনুরাগীরা। এমন পরিচালকের সঙ্গে কাজ দীপিকার ইমেজে একটি কালো দাগ বলে মনে করছেন নেটিজ়েনরা। তাই টুইটারে #নট মাই দীপিকা নামে একটি ট্রেন্ড শুরু করেছেন তাঁর ভক্তরা।

তবে লব রঞ্জনকে নিয়ে আপত্তির কারণ কী? এই পরিচালকের নাম #মিটুতে জড়িয়েছিল। এ ছাড়া পরিচালকের বাণিজ্যিক ভাবে সফল ছবিগুলি যেমন, ‘সোনু কে টিটু কী সুইটি’ বা ‘পেয়ার কা পঞ্চনামা’ নিয়ে এক ধরনের সমালোচনা প্রায়শই শোনা যায়। নারীবিদ্বেষী, মেয়ে‌দের প্রতি অপমানসূচক মন্তব্য, স্থূল ব্যঙ্গে ভরা থাকে এই সব ছবির সংলাপ। তাই দীপিকার মতো অভিনেত্রী, যিনি লিঙ্গ সমতার পক্ষে সওয়াল করেন, তাঁর এই পরিচালকের সঙ্গে কাজ করা ভাল চোখে দেখছেন না অনেকেই। লবের আগামী ছবিতে রণবীর কপূরের বিপরীতে জুটি বাঁধার কথা দীপিকার। সম্প্রতি পরিচালকের বাড়ি থেকে দুই অভিনেতার বেরোনোর ছবি প্রকাশিত হলে জল্পনা আরও বেড়ে যায়। সেখান থেকেই এই বিক্ষোভের সূচনা হয় সোশ্যাল মিডিয়ায়।

সিয়াম-পরীর ‘বিশ্বসুন্দরী’তে চম্পা

খোঁজখবর ওয়েব ডেস্কঃ পাঁচবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত বিজয়ী গুণী অভিনেত্রী চম্পা এবার যুক্ত হয়েছেন ‘বিশ্বসুন্দরী’ চলচ্চিত্রে। গত ১৬ জুলাই থেকে নরসিংদীর শিবপুরে ছবিটির চিত্রধারণের কাজে অংশ নিয়েছেন।

তার সঙ্গে আছেন এ ছবির নায়ক-নায়িকা সিয়াম ও পরীমনি। সিয়াম ও পরীমনিও এবারই প্রথম একসঙ্গে এ ছবির শুটিং করলেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নাট্যনির্মাতা চয়নিকা চৌধুরী। ‘বিশ্বসুন্দরী’-এর কাহিনি, চিত্রনাট্য ও সংলাপ লিখেছেন রুম্মান রশীদ খান।চম্পা বলেন, ‘‘এ ছবির গল্প ও আমার অভিনীত চরিত্র সম্পর্কে জেনেই ছবিটি করতে সম্মত হয়েছি। আমাদের বয়সী অভিনয়শিল্পীদের প্রাধান্য দিয়ে সাম্প্রতিক সময়ে খুব একটা চলচ্চিত্র নির্মিত হয় না। তবে ‘বিশ্বসুন্দরী’ চলচ্চিত্রে দর্শকরা আমাকে যে চরিত্রে এবং যেভাবে দেখবেন, তা এর আগে দর্শক আমার কাছ থেকে পাননি।পরীমনির সঙ্গে নাটক করতে গিয়েই বুঝেছিলাম, চলচ্চিত্রের নায়িকা হবার সব ধরনের গুণ ওর মধ্যে রয়েছে। আর সম্প্রতি ‘শান’ নামের আরেকটি চলচ্চিত্রে কাজ করতে গিয়ে সিয়ামকে চিনেছি, জেনেছি। অসম্ভব প্রতিশ্রুতিশীল একটি ছেলে সিয়াম।

উল্লেখ্য, ‘বিশ্বসুন্দরী’ প্রযোজনা করছে সান মিউজিক অ্যান্ড মোশন পিকচার্স লিমিটেড। জানা গেছে, এ ছবিতে আরেক গুণী অভিনেত্রী সুবর্ণা মুস্তাফার অভিনয় করার কথা থাকলেও তিনি ছবিটি করছেন না। পরিচালক চয়নিকা চৌধুরী বলেন, ‘সুবর্ণা আপার সাথে আমাদের শুটিংয়ের শিডিউল না মেলার কারণে আমরা তাকে পাচ্ছি না। তবে তার আশীর্বাদ সবসময়ই পেয়েছি, আশা করি ভবিষ্যতেও একসঙ্গে আরো কাজ করবো।

বলিউডি সেলেব্রিটির সঙ্গে অতীতের গোপন প্রেম স্বীকার সোনাক্ষীর!

খোঁজখবর ওয়েব ডেস্কঃ বলিউডে তাঁর কেরিয়ারের বয়স নয় নয় করে নয়। কিন্তু সোনাক্ষী সিংহের প্রেমের সম্পর্ক বরাবরই থেকেছে পর্দার আড়ালে। সচেতন ভাবে নিজের সম্পর্ক লুকিয়ে রাখেন তিনি। সহ অভিনেতাদের সঙ্গে তাঁকে জড়িয়ে বিশেষ গুঞ্জরিত হয়নি গুঞ্জন। কিন্তু শত্রুঘ্ন-কন্যা নিজেই স্বীকার করলেন অতীতে একজন সেলেব্রিটির সঙ্গে তাঁর প্রণয়ের সম্পর্ক ছিল। কিন্তু কাকপক্ষীতেও টের পায়নি তাঁদের প্রেম।

সোনাক্ষীর প্রেমের জন্যও নাকি ছিল শর্ত। নায়িকাকে সেই শর্ত দিয়েছিলেন তাঁর বাবা মা। প্রেম করা যাবে, কিন্তু কোনও ‘সুশীল পুরুষের’ সঙ্গে। ইন্ডাস্ট্রির কারও সঙ্গে প্রেমে প্রবল আপত্তি ছিল সোনাক্ষীর পরিবারের। কিন্তু বাবা-মায়ের কথা শোনেননি সোনাক্ষী। তাঁর বাবা-মায়ের চোখে ‘দুষ্টু’ কোনও বলিউডি লুটেরাই চুরি করেছিল তাঁর মন। দিব্যি চলেছিল গোপন ডেটিং। কিন্তু সেই ডেটিং প্রেম পর্যন্ত নাকি পৌঁছয়নি।

প্রেম নিয়ে সব সময়ই লো প্রোফাইল বজায় রেখে এসেছেন। অন্য নায়িকাদের মতো আজ এই নায়ক, কাল ওই নায়ক, পরশু তাবড় শিল্পপতি, এই রসায়নে কোনও দিনই বিশ্বাসী ছিলেন না সোনাক্ষী। সম্পর্কে প্রতারণাকে কোনও দিনই প্রশ্রয় দেননি তিনি। প্রেমে ঘুণ ধরা, অবিশ্বাসের কথা ভাবতেও পারেন না ‘দাবাং’ দুহিতা। প্রেমিক যদি বিশ্বাসঘাতকতা করেন? সে দিনটা দেখতেই চান না সোনাক্ষী।মাঝে গুঞ্জন শোনা গিয়েছিল যে, সোনাক্ষী নাকি বান্টি সজদেহকে ডেট করছেন। কিন্তু সেই রটনাকে নস্যাত করে দিয়েছিলেন সুন্দরী। সম্পর্ক যত ক্ষণ না অবধি বিয়ের মণ্ডপ অবধি এগোচ্ছে, তত ক্ষণ কাউকে বলবেন না বলেও ঠিক করেছিলেন নায়িকা। কিন্তু কবে সেই মাহেন্দ্রক্ষণ? অদূর ভবিষ্যতে তো একেবারেই নয়। কাজ নিয়ে তিনি এতই ব্যস্ত, বিয়ের কথা ভাবার সময়ই নেই, জানিয়েছেন সোনাক্ষী। কিন্তু যখন বিয়ে ঠিক হবে, তখন তিনি নিজে দুনিয়ার সবাইকে জানাবেন, ভেবেই রেখেছেন ‘বুলেট রাজা’র নায়িকা। তবে তাঁর সবথেকে বিরক্ত লাগে, যখন সবাই তাঁর বিয়ে নিয়ে জল্পনা কল্পনা শুরু করে দেয়। যেন, যার বিয়ে তার হুঁশ নেই, পাড়া পড়শির ঘুম নেই।

টিনা রাসেলের কণ্ঠে রক ব্যান্ডদল ওয়ারফেইজ-এর জনপ্রিয় গান

খোঁজখবর ওয়েব ডেস্কঃ দেশের জনপ্রিয় রক ব্যান্ডদল ওয়ারফেইজ-এর জনপ্রিয় গানগুলোর মধ্যে অন্যতম ‘যখন’। বাবনার কথা-সুর-কণ্ঠের এই গানটির মাধ্যমে এক প্রেমিক তার প্রেমিকার প্রতি ব্যাকুলতার কথা তুলে ধরেছেন। প্রেমিকের একতরফা সেই আকুলতার যেন এবার প্রত্যুত্তর এলো একইভাবে। কারণ, গানটি নতুন করে গেয়েছেন সংগীতশিল্পী টিনা রাসেল।

নতুন সংগীতায়োজন করেছেন সচি শামস্। গানের কথার মতোই সিলেটের সবুজ প্রকৃতির মাঝে হয়েছে এর দৃশ্যধারণ।
গানটি প্রসঙ্গে শিল্পী টিনা রাসেল বলেন, ‘এটি আমার অনেক পছন্দের একটি গান। কতোটা গাইতে পেরেছি, সেটার বিচার শ্রোতারাই করবেন। গত জন্মদিনে (১৮ এপ্রিল) সিলেটের নয়নাভিরাম প্রকৃতিঘেরা একটি রিসোর্টে এটির দৃশ্যধারণ করেছিলাম। গানের জন্য এমন একটি পরিবেশ খুব দরকার ছিল।’

এর আগেও বেশ ক’টি গানের কাভার করেছেন এই তরুণ শিল্পী। এরমধ্যে উল্লেখযোগ্য তরুণ মুন্সীর ‘চলে যদি যাবি স্বার্থপর’, সন্ধ্যা মুখোপাধ্যায়ের ‘খোলা আকাশ’ প্রভৃতি। সেই ধারাবাহিকতায় এবার গাইলেন ওয়ারফেইজের গান ‘যখন’।

মাঝে প্রকাশ পায় টিনা রাসেলের গাওয়া ‘তুমি কাছে থেকেও দূরে’ শিরোনামের মৌলিক গান। সবক’টি গান অবমুক্ত করা হয় শিল্পীর নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেলে। ভিডিওগুলো নির্মাণ করেছে ‘জুটি’ প্রোডাকশন।

টিনা জানান, মৌলিকের পাশাপাশি নিয়মিতই কাভার গান তিনি করবেন। আর এজন্য মূল শিল্পীর অনুমতি নিয়ে সুর ও কথা ঠিক রেখে এটি করে যেতে চান তিনি। মূলত প্রিয় গানের প্রতি ভালোবাসা থেকেই এমন উদ্যোগ তার।

নুসরাত স্বামী নিখিল জৈনকে সঙ্গে নিয়ে খাজা হজরত নিজামুদ্দিনের দরগা শরীফে

খোঁজখবর ওয়েব ডেস্কঃ টলিউড অভিনেত্রী নুসরাত জাহানের বিয়ে নিয়ে আলোচনা ও বিতর্ক কম হলো না। বিশেষ করে হিন্দু রীতিতে অমুসলিমকে বিয়ে, হিন্দু নারীদের মতো সিঁদুর পরা নিয়ে আলোচনা-সমালোচনার পারদ একটু বেশিই ছিলো। তার উপর ভারতের লোকসভা নির্বাচনে মমতা ব্যানার্জির দলের হয়ে পশ্চিমবঙ্গের বসিরহাট লোকসভা আসন থেকে সাংসদ নির্বাচিত হয়েছেন এ নায়িকা। সব মিলিয়ে আলোচনায় ছিলেন তিনি।

তবে নেতিবাচক কোন সমালোচনা গায়ে মাখেননি নুসরাত। নিজের গতিতেই এগিয়েছেন। এবারও এলেন আলোচনায়। সেই স্বামীকে নিয়েই।সম্প্রতি স্বামী নিখিল জৈন সঙ্গে নিয়ে খাজা হজরত নিজামুদ্দিনের দরগা শরীফে গেলেন নুসরাত। আর সেই দরগা থেকে একটি ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করে নিখিল লিখেছেন- ‘ভগবান সর্বত্র। তুমি কোথায় তাকে খুঁজে পাবে তা নির্ভর করছে তোমার উপর। আমি তোমার মধ্যেই আমার ভগবানকে খুঁজে পেয়েছি।’

তুরস্কের বোদরুমে গত মাসে নিখিল জৈনের সঙ্গে বিয়ে সারেন নুসরাত। কলকাতার আইটিসি রয়্যালে হয়েছে গ্র্যান্ড রিসেপশন। সেখানে উপস্থিত ছিলেন সিনে দুনিয়া থেকে রাজনৈতিক জগতের প্রতিনিধিরা। ক’দিন আগে শপথ নিয়েছেন সংসদেও।

বিশ্বসুন্দরীকে ছেড়ে জ্যাকুলিনেই অনুরক্ত সালমান?

খোঁজখবর ওয়েব ডেস্কঃ ২০১৪ সালে বলিউড সুপারস্টার সালমান খানের বিপরীতে ‘কিক’ ছবিতে অভিনয় করে দারুণ সফলতা পেয়েছিলেন শ্রীলঙ্কান সুন্দরী জ্যাকুলিন ফার্নান্দেজ। আর সে ছবিতে নেচেগেয়ে সালমান জানিয়েছিলেন জ্যাকুলিনের ওপর তার ‘হ্যাংওভার’-এর কথা। জ্যাকুলিনে তার সেই ঘোর এখনো কাটেনি বলেই মনে হচ্ছে। কারণ, এবার ছবিটির সিক্যুয়ালেও শোনা যাচ্ছে জ্যাকুলিনের নাম। যেখানে আগে শোনা যাচ্ছিল বিশ্বসুন্দরী মানুষি ছিল্লারের নাম।

‘কিক’ ছবির সিক্যুয়াল ‘কিক টু’ নির্মাণের শুরু থেকেই শোনা যাচ্ছিল এ ছবিতে সালমান খানের বিপরীতে নতুন কেউ অভিনয় করবেন। আর সেই নতুন মুখ হচ্ছেন, ২০১৭ সালের বিশ্বসুন্দরী মানুষি ছিল্লার। কিন্তু এখন শোনা যাচ্ছে, ছবিটিতে মানুষি আউট আর জ্যাকুলিন ইন। মানুষির না থাকার পেছনে সালমানের হাত আছে- শোনা যাচ্ছে এমন কথাই।

ফলে বড় পর্দায় আবারও সালমান-জ্যাকুলিনের রসায়ন দেখবেন দর্শক। ‘কিক টু’ ছবি পরিচালনা ও প্রযোজনা করছেন সাজিদ নাদিয়াদওয়ালা। তিনিই নাকি এ ছবির মধ্য দিয়ে বলিউডে নতুন মুখ আনতে চেয়েছিলেন। তারই প্রথম পছন্দ ছিল মানুষি। কিন্তু অনেকেই বলছেন, সালমানের কারণে তা হয়নি।

অবশ্য ডেকান ক্রনিকেলের এক প্রতিবেদনে ‘কিক টু’ ছবির এক সূত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে বলা হয়েছে, “জ্যাকুলিন ‘কিক টু’ হাতিয়ে নিয়েছেন। বন্ধু সালমানের মাধ্যমে তিনি সাজিদ নাদিয়াদওয়ালাকে তাকে নিতে রাজি করিয়েছেন। শেষ পর্যন্ত বাধ্য হয়ে অন্য কাউকে ছবিতে নেওয়ার ভাবনা বাদ দিতে হয়েছে পরিচালককে।”

৩৩ বছর বয়সী জ্যাকুলিন ফার্নান্দেজ ২০০৬ সালে ‘মিস শ্রীলঙ্কা’ হন। ২০০৯ সালে ‘আলাদিন’ ছবি দিয়ে তিনি বলিউডে পা রাখেন। এরপর তাকে ‘মার্ডার টু’, ‘হাউসফুল টু’, ‘হাউসফুল থ্রি’, ‘রেস থ্রি’ ছবিতে দেখা গেছে।

ফারহান-শিবানীর ‌‘আগুন ছবি’ ফের ভাইরাল!

খোঁজখবর ওয়েব ডেস্কঃ কিছুদিন আগেই বিদেশের মাটিতে ছুটি কাটানোর বিভিন্ন ছবি ভাইরাল হয়েছে। সে ধারাবাহিকতায় এবার ভাইরাল সমুদ্র সৈকতে তোলা আগুন সব ছবি। সম্প্রতি বলিউড অভিনেতা ফারহান আখতার ও তার প্রেমিকা শিবানী দান্ডেকর ইন্সটাগ্রামে শেয়ার করা কিছু ভাইরাল হয়েছে।

ভারতীয় গণমাধ্যম ইন্ডিয়া টাইমসের খবরে বলা হয়েছে, মেক্সিকো থেকে কিছুদিন আগেই ছুটি কাটিয়ে ফিরেছেন ফারহান-শিবানী। তখনই শোনা যাচ্ছিল, তাদের নাকি এনগেজমেন্ট হয়ে গেছে। আবার ছুটি কাটিয়ে ফিরেই এ তারকা জুটিও জানান, খুব শিগগিরই চার হাত এক হতে চলেছে তাদের।এর পরই ফারহান ও শিবানী ছুটি কাটাতে যান সমুদ্র সৈকতে। সেখান থেকেই তারা শেয়ার করেন আগুন সব ছবি। ইন্সটাগ্রামে শেয়ার করা সেই ছবিতে ফারহান লিখেছেন, ‘তোমায় পেয়ে আমি খুশি। কোনোদিনই হারাতে চাই না।’

উল্লেখ্য, ২০১৫ থেকেই পরস্পরকে চেনেন শিবানী-ফারহান। সম্প্রতি দীপিকা-রণবীরের রিসেপশনেও হাত ধরাধরি করে দেখা গেছে তাদের। এর আগে ২০১৭ সালে অধুনা ভবানির সঙ্গে দাম্পত্যে ইতি টানেন ফারহান।

‘সাহো’র ৮ মিনিটের অ্যাকশন দৃশ্যের খরচ ৭০ কোটি রূপি!

খোঁজখবর ওয়েব ডেস্কঃ কিছুদিনের মধ্যেই মুক্তি পেতে চলেছে প্রভাস এবং শ্রদ্ধা কাপুর অভিনীত বলিউড ছবি `সাহো’। ট্রেলারেই দেখা গিয়েছিল ছবিটির জমজমাট চোখ ধাঁধানো বিভিন্ন অ্যাকশন দৃশ্যের ঝলক।

সম্প্রতি জানা গেল আরো এক নতুন তথ্য। আর তা হচ্ছে, এ ছবির ছোট্ট একটি অ্যাকশন দৃশ্য শুট করতে কত খরচ হয়েছে সেই অঙ্কটা। এ তথ্যটি জানিয়েছেন সাহো ছবির সিনেম্যাটোগ্রাফার মাধি।

তিনিই বলেছেন, ৮ মিনিটের একটি অ্যাকশন দৃশ্য শ্যুট করার জন্য খরচ করা হয়েছে ৭০ কোটি রূপি! এই বিপুল অঙ্কের বাজেট অ্যাকশন দৃশ্যটির শ্যুটিং হয়েছে আবু ধাবিতে।

মাধি-র বিশ্বাস এ ছবি এক নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করবে। এর আগে ভারতীয় চলচ্চিত্রে কোনও একটি দৃশ্যের জন্যে এত বিপুল পরিমাণ খরচ হয়নি। এ ছবিতে প্রভাসকে দেখা যাবে বহুমাত্রিক এক জটিল চরিত্রে। অন্যদিকে, শ্রদ্ধা কাপুর রয়েছেন পুলিশ কর্মকর্তার চরিত্রে।

প্রভাস ও শ্রদ্ধার পাশাপাশি এই ছবিতে দেখা যাবে জ্যাকি শ্রফ, নীল নীতিন মুকেশ, মন্দিরা বেদী, চাঙ্কি পান্ডে, মহেশ মঞ্জারেকর, অরুণ বিজয় এবং মুরলি শর্মাকে। সাহো ছবিটি হিন্দি, তামিল এবং তেলুগু ভাষায় মুক্তি পাবে আগামী ১৫ অগস্ট।

২১ জুলাইয়ের মঞ্চ কি পরিষ্কার করে দেবে অনেক হিসেব?

খোঁজখবর ওয়েব ডেস্কঃ শিরোনামটা পুরনো বাংলা সিনেমার নামের মতো শোনালেও টলিউড ইন্ডাস্ট্রির বর্তমান অবস্থা বোঝানোর জন্য এটাই বোধহয় আদর্শ শব্দবন্ধ। দাঁড়িপাল্লার ভর কোন দিকে হেলবে, তা নিয়ে নানা গল্প শোনা যাচ্ছে। তার এক দিকে তৃণমূল কংগ্রেস এবং অন্য দিকে যে বিজেপি, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। যে কারণে এ বছরের ২১ জুলাইয়ের মঞ্চ গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। সেখানে উপস্থিতি-অনুপস্থিতির উপরে ইন্ডাস্ট্রির অনেক অঙ্ক নির্ভর করছে।

এমনিতেই টলিউডের ভাগ্য খারাপ চলছে। সিবিআই, ইডির ঘেরাটোপে বড় তারকাদের নাম চলে আসছে। রোজ়ভ্যালি কাণ্ড ফের চাগাড় দিয়ে ওঠা এবং তার জন্য প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়, ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তকে ইডি থেকে তলব করার ঘটনা টলিউডের পক্ষে ভাল নয়। সারদা কাণ্ডে জড়িয়েছেন তৃণমূল সাংসদ শতাব্দী রায়ও। রোজ়ভ্যালি কাণ্ডেই গ্রেফতার হয়েছেন প্রযোজক শ্রীকান্ত মোহতা। তার ঠিক পরেই প্রসেনজিৎ-ঋতুপর্ণার নাম জড়িয়ে যাওয়াটা ইন্ডাস্ট্রির কাছে বেশ বড় ধাক্কা। ঋতুপর্ণাকে নিয়ে এর আগেও গুঞ্জন হয়েছে, কিন্তু ইন্ডাস্ট্রিতে ক্লিন ইমেজ রেখে চলেছেন প্রসেনজিৎ। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে সুসম্পর্ক হলেও রাজনীতির মঞ্চে তাঁকে সরাসরি দেখা যায়নি। ইডির তদন্তে প্রসেনজিৎ সব রকম সহযোগিতার আশ্বাস দিলেও তাঁকে কতটা রেহাই দেওয়া হবে সন্দেহ রয়েছে! বিশেষ করে টলিউডে দল বদলাবদলির যে চোরাস্রোত শুরু হয়েছে, তাতে কার তরি কোন দিকে ভিড়বে তা স্পষ্ট নয়।

লোকসভা নির্বাচনের পরে তৃণমূল থেকে বিজেপিতে যোগদানের হিড়িক অব্যাহত। টলিউডের টেকনিশিয়ান স্তরে দলবদলের ঘটনা কিন্তু চলছে। এর মাঝে দলবদলের একাধিক গুঞ্জন রটেছে। তার মধ্যে চমকে দেওয়ার মতো নাম নুসরত জাহানের! টলিউডের বিজেপি লবির দাবি, নুসরতকে বিজেপিতে যোগ দেওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। শোনা যাচ্ছে রুদ্রনীল ঘোষের নামও। এ বারের নির্বাচনে তিনি টিকিট পাওয়ার আশা করেছিলেন। কিন্তু সে রকম কিছু না হওয়ায় তিনি নাকি ক্ষুব্ধ। ইন্ডাস্ট্রি সূত্রে খবর, রুদ্রনীল এখন বিজেপির দিকে ঝুঁকেছেন। সুযোগ-সুবিধে পেলে তিনি সমর্থন বদলাতে সময় নেবেন না। আরও একটি নাম অবাক করেছে অনেককে। পার্নো মিত্রর সঙ্গে রাজনীতির কোনও রকম যোগাযোগের কথা শোনা যায়নি। সম্প্রতি তিনি এবং রিমঝিম মিত্র বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব শিবপ্রকাশের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। বিজেপি নেতা অনুপম হাজরার উদ্যোগেই এই সাক্ষাৎ হয়। ওই বৈঠকে থাকার জন্য নাকি পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়কেও অনুরোধ করা হয়েছিল। তবে ওই সময়ে তিনি বিদেশে শুটিং করছিলেন।

এর মধ্যে টলিউডের প্রবীণ বামপন্থী অভিনেতা বিপ্লব চট্টোপাধ্যায় বিজেপি শিবিরে নাম লিখিয়েছেন। এ দিকে মাধবী মুখোপাধ্যায় আবার বিজেপির সংগঠন বঙ্গীয় চলচ্চিত্র পরিষদকে সমর্থন জানিয়েছেন। মাধবীকে একাধিকবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডাকে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে দেখা গিয়েছে।

গত কয়েক বছর ধরে ২১ জুলাইয়ের মঞ্চ নিয়ন্ত্রণ করে আসছিলেন শ্রীকান্ত মোহতা। এখন সেই দায়িত্ব গিয়েছে অরূপ বিশ্বাসের কাছে। স্বাভাবিক ভাবেই দেব, মিমি চক্রবর্তী এবং নুসরত জাহান মঞ্চে থাকবেন বলে ধরে নেওয়া হচ্ছে। থাকার কথা অরিন্দম শীলেরও। অন্যান্য বার রুদ্রনীলকে দেখা যায়। পরিস্থিতি বলছে, তিনি অনিশ্চিত। প্রশ্নচিহ্ন ঝুলছে নচিকেতার নামেও। শ্রাবন্তী, পায়েল, তনুশ্রীর মতো নিয়মিতদেরও কি দেখা যাবে?

বিজেপিও টলিউডে ঘুটি সাজাচ্ছে। সোমবার বিজেপি সংগঠন ইআইএমপিসিসি-র তরফে ডাকা বৈঠকে যোগ দেন অভিনেতা সাহেব চট্টোপাধ্যায়। খবর, শ্রীলেখা মিত্রের যোগ দেওয়ার কথা থাকলেও পরে মত পাল্টান। বিজেপি নেত্রী অগ্নিমিত্রা পল বলেন, ‘‘বিজেপি টলিউডে প্রতিপত্তি কায়েম করতে চায় না। শিল্পী, কর্মীরা যে ভাবে বঞ্চিত হচ্ছেন, তা আটকানোর চেষ্টা করছি।’’আপাতদৃষ্টিতে টলিউড দখলদারির খেলায় বিজেপির পাল্লা ভারী বলা যাচ্ছে না। তবে টুকরো টুকরো ঘটনা কিছু ইঙ্গিত দিচ্ছেই।

দবং ৩-এ সলমনের বিপরীতে কি থাকছে না রাজ্জো?

খোঁজ-খবর,ওয়েবডেস্কঃ- প্রথমে শোনা গিয়েছিল দবং ৩-র হাত ধরে সলমনের বিপরীতে বলিউডে আত্মপ্রকাশ করছেন পরিচালক, অভিনেতা মহেশ মঞ্জরেকরের বড় মেয়ে অশ্বামী। কিন্তু এখন শোনা যাচ্ছে বড় নয়, মহেশ মঞ্জরেকরের ছোট মেয়ে সাই ‘দবং ৩’ দিয়ে পা রাখতে চলেছেন বলিউডে। মুম্বইয়ের একটি সংবাদপত্র জানাচ্ছে, সলমন তাঁর বন্ধু মহেশ মঞ্জরেকরের ছোট মেয়েকে অভিনয়ে আনছেন। আর সাই-এর প্রথম ছবিই সলমনের বিপরীতে, পুলিশ ড্রামা দবং ৩-তে হতে চলেছে।
মহেশ মঞ্জরেকরের বড় মেয়ে অশ্বামীর অভিনয় জগতে পা রাখার পরিকল্পনা নেই। তবে তাঁর বোন অভিনয়কেই তাঁর পেশা করতে চান। ইতিমধ্যেই দবং ৩-এর কিছু দৃশ্য ও সলমন ও সাই-কে নিয়ে একটি গানও শ্যুট হয়েছে। দবং ৩ পরিচালনা করছেন প্রভু দেবা। সলমনকে খুব কম বয়সী এক পুলিশ অফিসারের ভূমিকায় দেখা যাবে। চরিত্রের জন্য সলমনকে বেশ কিছুটা ওজন কমাতে হয়েছে। সলমন ছাড়াও দবং ৩-এ রাজ্জোর চরিত্রে সোনাক্ষী সিনহা ও মাক্ষির চরিত্রে আরবাজকেও দেখা যাবে।