ফুলশয্যার দিন আত্মঘাতী গৄহবধু

নিজস্ব প্রতিনিধি, দক্ষিণ ২৪ পরগণাঃ ফুলশয্যার দিন আত্মঘাতী গৄহবধু ৷ অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় বারুইপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হলে আজ সকালে তার মৄত্যু হয় ৷ মৄতার নাম প্রিয়াঙ্কা সরদার ৷ তাব বাড়ি বিষ্ণপুর থানা এলাকায় ৷ শুক্রবার দিন তার বিয়ে হয় ৷ রবিবার তার ফুলশয্যা হওয়ার কথা ছিল ৷ তার আগে শনিবার সে বাপের বাড়ি চলে আসে ৷ বাড়ির লোককে জানায় যে তার সংসার করতে ভালো লাগছে না ৷ সে আর বাপের বাড়ি যেতে ইচ্ছুক নয় ৷ এইকারণে তার মা একটু বকাবকিও করে ৷ তারপর রাতের বেলায় বাড়িতেই সে গায়ে আগুন লাগায় ৷ অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে বারুইপুর হাসপাতালে নিয়ে আসা হয় ৷ আজ সকালে তার মৄত্যু হয় ৷ এই ঘটনায় বারুইপুর থানা অস্বাভাবিক মৄত্যুর মামলা রুজু করেছে ৷

পাথরপ্রতিমায় দূর্গা ঠাকুরের খুঁটি পূজার সঙ্গে সঙ্গেই ৪ টি হাইমাস লাইট উদ্বোধন করলেন বিধায়ক সমীর কুমার জানা

নিজস্ব প্রতিনিধি, দক্ষিণ ২৪ পরগনাঃ পাথরপ্রতিমা ব্লকের দিগম্বর পুর গ্রাম পঞ্চায়েত জনবহুল এলাকায় পরিবেশবান্ধব ৪ টি হাইমাস লাইটের শুভ উদ্বোধন হলো। সেই সঙ্গে জলের অপচয় রোধ এবং জল ভরো প্রকল্প থিম এর মাধ্যমে দিগম্বর পুর গ্রাম পঞ্চায়েতের হাসপাতাল মোড়ের দূর্গা পূজা কমিটি এবং হাসপাতাল মোড় ব্যবসায়ী সমিতির উদ্যোগে ৪০ বৎসরের দুর্গা উৎসবের খুঁটি পূজার মাধ্যমে শুভ উদ্বোধন করা হলো । এবছরের থিম জলের অপচয় রোধ জল ভরো প্রকল্প। এই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন হাসপাতাল মোড়ের ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি শোভন লাল শি, ঢোলাহাট থানা আর আধিকারিক অনিন্দ্য মুখার্জী, দিগম্বর পুর গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান রবীন্দ্রনাথ বেরা, দিগম্বর পুর গ্রাম পঞ্চায়েতের শাসক দলের সভাপতি গৌর হরি মাল, পঞ্চায়েত সদস্য তপন গুরিয়া, হাসপাতাল মোড় ব্যবসায়ী সমিতি এবং দূর্গা পূজা কমিটির বিভিন্ন সদস্য বৃন্দ।

মদ্যপ অবস্থায় বাড়িতে ঢুকে বৌমার শীলতাহানি, প্রতিবাদ করায় আহত তিন

নিজস্ব প্রতিনিধি, দক্ষিণ ২৪ পরগণাঃ মদ্যপ অবস্থায় বাড়িতে ঢুকে বৌমার শীলতাহানি করার প্রতিবাদ করায় অভিযুক্তের মারে মাথা ফাটলো প্রতিবাদী বৃদ্ধার ও আহত আরো তিন জন।ঘটনাটি ঘটেছে ক্যানিং থানার উত্তর তালদি গ্রামে।অভিযোগ গত শনিবার গ্রামেরই এক যুবক মদ্যপ অবস্থায় প্রতিবেশীর বাড়িতে ঢুকে এক গৃহবধূকে শীলতাহানি করে।গৃহবধূর চিৎকারে স্থানীয়রা ছুটে এলে অভিযুক্ত যুবক পালিয়ে যায়।এর পর ঘটনার কথা পরিবারের লোকজনকে জানালে পরিবারের লোকজন অভিযুক্তের বাড়িতে জানালে হুমকি দেওয়া হয় বলে অভিযোগ।এরপর ওই গৃহবধূর পরিবারের লোকজন ক্যানিং থানায় অভিযোগ জানালে,গতকাল অভিযুক্ত যুবক কয়েকজন কে সঙ্গে নিয়ে গিয়ে বাড়িতে চড়াও হয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপ মারে।এই ঘটনায় গৃহবধূর স্বামী শশুর ও বৃদ্ধা দিদা শাশুড়ি কে মারধোর করা হয় ।পাশাপাশি ওই বৃদ্ধার মাথায় কোপ মারা হয়।তাঁকে আশঙ্কা জনক অবস্থায় ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এবং অভিযোগ অভিযুক্ত যুবক থানায় করা অভিযোগ তুলে নেওয়ার জন্য চাপ দিচ্ছে বলে অভিযোগ।আজ সকালে ক্যানিং থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে আক্রান্ত ব্যক্তিরা।ঘটনার তদন্তে ক্যানিং থানার।ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত পলাতক।

জঙ্গল আমাদের অধিকার, জঙ্গল ফিরিয়ে দাও এই দাবিতে জাতীয় সড়ক অবরোধ

নিজস্ব প্রতিনিধি, বীরভূমঃ আদিবাসীদের জল জমি জঙ্গলের অধিকার ফিরিয়ে দিতে হবে। উত্তরপ্রদেশের সোনভদ্রে খুনের প্রতিবাদ জানিয়ে সিউড়ির আব্দারপুরে ৬০ নম্বর জাতীয় সরক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখালো আদিবাসী উন্নয়ন গাঁওতা।অবরোধ চলে প্রায় 45 মিনিট। এদিন বক্তব্য রাখতে গিয়ে আদিবাসী গাঁওতা সম্পাদক রবীণ সোরেন জানান সুপ্রীম কোর্টের রায় তাদের বিপক্ষে গেলে পুরো রাজ্যে আগুন জ্বলবে বলে হুঁশিয়ারি দেন। তারা হুঁশিয়ারী দেন সুপ্রীম কোর্টের রায় বিরুদ্ধে গেলে আন্তর্জাতিক আদালতেও জাবেন তারা। সিউড়ি ছাড়াও মহম্মদবাজারের জয়পুরে পথ অবরোধ করা হয় গাঁওতার পক্ষ্য থেকে।

জায়গায় জায়গায় অবরোধের ফলে সপ্তাহের প্রথম দিনে চরম যানজটে নাকাল হতে হয় জেলাবাসীকে। পরে অবশ্য সিউড়ি থানার আশ্বাসে অবরোধ তুলে নেওয়া হয় আদিবাসী গাওতার পক্ষ থেকে।

৫ বছরের এক নাবালিকাকে প্রথমে ধর্ষন বাধা দিলে তাকে শ্বাসরোধ করে খুন

নিজস্ব প্রতিনিধি, দক্ষিণ ২৪ পরগণাঃ ৫ বছরের এক নাবালিকাকে প্রথমে ধর্ষন বাধা দিলে তাকে শ্বাসরোধ করে খুন ৷ ঘটনাটি ঘটেছে নরেন্দ্রপুর থানা এলাকার খেয়াদহে ৷ খুনের পর জঙ্গলে ফেলে পলাতক অভিযুক্ত ৷ ঘটনার তদন্তে নেমে শিয়ালদহ থেকে গ্রেপ্তার করা হয় অভিযুক্ত আজগর আলিকে ৷ আজ তাকে বারুইপুর আদালতে তোলা হয়েছে ৷ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিজেদের হেফাজতে নেবে পুলিশ ৷ গত সোমবার থেকে নিখোঁজ ছিল দক্ষিণ ২৪ পরগণার নরেন্দ্রপুর থানার অন্তর্গত খেয়াদহ এলাকার এক নাবালিকা শিশু। পরিবার ও স্থানীয় মানুষদের অভিযোগ ছিল স্থানীয় আজগর আলি(৪০) নামের এক যুবক ঐ শিশুকে অপহরণ করেছে। ঘটনার পর থেকেই পলাতক ছিল আজগর ৷ সে কোনও ফোনও ব্যবহার করত না ৷ ফলে কার সন্ধান পেতে বেগ পেতে হয় পুলিশকে ৷ বিভিন্ন রেল ষ্টেশনে তল্লাশি শুরু করে পুলিশ ৷ কারণ আজগর মাঝে মাঝেই ষ্টেশনে রাত কাটাত ৷ শনিবার রাতে শিয়ালদহ স্টেশান থেকে অভিযুক্ত আজগর আলিকে গ্রেফতার করে বারুইপুর থানার পুলিশ। পুলিশি জেরায় আজগর স্বীকার করে ঐ নাবালিকাকে পিয়ারা দেওয়ার লোভ দেখিয়ে একটি ফাঁকা জায়গায় নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করেছে সে। তারপর শ্বাসরোধ করে খুন করে দেহ স্থানীয় ঝোপের মধ্যে ফেলে দিয়েছে।

ব্যাঙ্গের বিয়েতেই আসবে বিয়ে, আকাশের মুখ চেয়ে আবালবৃদ্ধ বণিতা

নিজস্ব প্রতিনিধি, দক্ষিণ ২৪ পরগণাঃ রায়দিঘী: নামেই রাজ্যে ঢুকেছে বর্ষা। অথচ বৃষ্টির দেখা নেই দক্ষিণ বঙ্গে। পরিসংখ্যান বলছে এখনও দক্ষিণবঙ্গে বিষ্টির ঘাটতি ৫০ শতাংশ। বেজায় সমস্যায় কৃষকরা। এবার তাই বৃষ্টি ডাকতে ব্যাঙ্গের বিয়ের আয়োজন করা হল দক্ষিণ ২৪ পরগণার রায়দিঘীর কৌতলাতে। গ্রামবাসীদের বিশ্বাস, ব্যাঙ্গের বিয়ে দিলেই নাকি বৃষ্টি হবে সব জায়গায়। তাই গ্রামের মানুষরা মিলে ব্যবস্থা করেছে ব্যাঙ্গের বিয়ের অনুষ্ঠান। তাই নিয়েই মেতে উঠল রায়দিঘীর কৌতলার আবালবৃদ্ধবণিতা।

জানা গিয়েছে, ওই এলাকার কৃষিকাজ মূলত বৃষ্টিপাতের ওপরই নির্ভর করে। কিন্তু এবার বৃষ্টিপাতের অভাবে চিন্তার ভাঁজ সকলের কপালে। তাই কৃষিতে বাধা দূর করতে রীতিমতো অনুষ্ঠান করে ২টি ব্যাঙ্গের বিয়ের ব্যবস্থা করেন গ্রামবাসীরা৷ প্রায় ১০টি গ্রামের মানুষ হাজির হয় ওই বিয়ের অনুষ্ঠানে। ঢাক,বাজনা বাজিয়ে বয়ারগদীর পাত্র ব্যাঙ্গ রাজের সঙ্গে বিয়ে দেওয়া হয় কৌতলার পাত্রী ব্যাঙ্গ শুভশ্রীর সঙ্গে । তা দেখতে প্রচুর মানুষ ভিড় করে ওই অনুষ্ঠানে। অনুষ্ঠানে আগত সমস্ত মানুষদের খাওয়া দাওয়ার আয়োজণ করে কৌতলা কার্তিক সংঘের ছেলেরা।

ফের আবারো পদ পেলেন অর্পিতা ঘোষ

নিজস্ব প্রতিনিধি, দক্ষিণ দিনাজপুরঃ প্রাক্তন জেলা সভাপতি বিপ্লব মিত্র বিজেপিতে যোগদানের পর থেকেই মমতা ঘনিষ্ঠ অর্পিতা ঘোষকে একাধিক সরকারি দায়িত্ব দেওয়া হচ্ছে।
এবার দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার আইসিডিএস প্রকল্পের জেলা সিলেকশন ও মনিটারিং কমিটির চেয়ারম্যান হলেন অর্পিতা ঘোষ। এই কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান হন উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দফতরের প্রতিমন্ত্রী বাচ্চু হাঁসদা। বৃহস্পতিবার রাজ্য সরকারের সেই চিঠি এসে পৌঁছেছে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা প্রশাসনের কাছে।
নির্বাচনে হার যেন শাপে বর হয়েছে প্রাক্তন সাংসদ অর্পিতা ঘোষের। নির্বাচনে হারের পর থেকেই দলের ও প্রশাসনিক পদ পেতে শুরু করেছেন অর্পিতা দেবী। নির্বাচনের হারের দু’দিনের মাথায় তিনি জেলা সভাপতি হিসেবে নিয়োগ পত্র পেয়েছেন। এরপর উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন পর্ষদের ভাইসচেয়ারম্যান। চলতি সপ্তাহেই বালুরঘাট পৌরসভার প্রশাসক হয়েছেন তিনি। এবারে এই নতুন পদ, জেলায় অর্পিতার ক্ষমতা আরও বাড়াল বলেই মনে করা হচ্ছে। এদিকে নতুন দায়িত্ব পাওয়ায় খুশি অর্পিতা ঘনিষ্ঠ ও অনুগামীরা।
প্রসঙ্গত, আগে এই কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন তৃণমূলের প্রাক্তন জেলা সভাপতি বিপ্লব মিত্র।

মুভি রিভিউ দ্য লায়ন কিং: মেজাজটাই যে আসল রাজা

খোঁজখবর ওয়েব ডেস্কঃ আসলে আমাদের সবার মধ্যে, এক ছোট্ট ‘সিম্বা’ লুকিয়ে আছে। মাঝে মাঝে উঁকি দেয়। যে মাথা উঁচু করে বাঁচতে চায়। আকাশের দিকে চেয়ে, মাথা উঁচু করে, পাহাড়ের চূড়া থেকে দিতে চায় হুঙ্কার। পরিচালক বোধহয়, সেইটেই দারুণ করে দেখিয়েছেন।

কিছু ছবি থাকে, যা আমরা সিনেমা হলেই আধখাওয়া পপকর্নের সঙ্গেই ফেলে আসি। আর কিছু ছবি আমাদের কাঁধে চেপে বাড়ি ফেরে। দ্য লায়ন কিং দ্বিতীয় প্রকারের ছবি।মুফাশা জঙ্গলের রাজা। সত্যিকারের রাজা কাকে বলে তা মুফাশাই তার আদরের ছেলে, তার উত্তরসূরি, ছোট্ট সিম্বাকে বলেন, “সত্যিকারের রাজা কখনও ভাবে না সে কী কী পেতে পারে, বা ছিনিয়ে নিতে পারে, দখল করতে পারে। সত্যিকারের রাজা ভাবে, সে কী কী দিতে পারে।”মুফাশার ভাই স্কার এখানে খলনায়ক। রাজা না হতে পারার জ্বালায় সে নানান ফন্দি করে, শয়তান হায়েনার দলের সঙ্গে হাত মিলিয়ে, সিম্বাকে টোপ হিসেবে ব্যবহার করে শুধু মুফাশার হত্যাই করে না, সে ছোট্ট একরত্তি সিম্বাকে বলে, তার বাবার মৃত্যুর কারণ সিম্বাই। স্কার ছোট্ট সিম্বাকে এলাকা ছেড়ে পালাবার পরামর্শ দিয়ে, তার পেছনে হায়েনার দল লেলিয়ে দিয়ে, হায়েনাদের পান্ডাকে বলে, সিম্বাকে একেবারে শেষ করে দিতে।কিন্তু ভাগ্যের অন্য কোনও প্ল্যান ছিল। সিম্বা হায়েনাদের তাড়া খেয়ে, পাহাড়ের উঁচু কোল থেকে পড়েও, কোনও রকমে প্রাণে বাঁচে। অলস হায়েনারা ভাবে সিম্বা মরে গেছে। তারা চলে গেলে মনের দুঃখে সিম্বা দূরে মরুভূমিতে গিয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। সেখানে তাকে শকুনের দলের হাতে নিশ্চিত মৃত্যুর হাত থেকে বাঁচায় ‘পুম্বা’(শুয়োর) আর ‘টিম্বা’ (মিরক্যাট)। তারা ছোট্ট সিম্বাকে দত্তক নিয়ে, তাকে নিয়ে যায় এক নতুন জগতে, যেখানে সিম্বার কেউ নেই। তবু সিম্বা একা নয়।কী হয় তার পর? সিন্বা কি সত্যি রাজা হতে পারবে? নিতে পারবে বাবার হত্যার প্রতিশোধ? সে কাহিনি অত্যন্ত নিপুণ ভাবে বোনা হলেও ছবির শেষের দিকে এসে মনে হয়, দৈর্ঘ্য কম করতে হয়তো অনেক প্রয়োজনীয় দৃশ্য পরে ছবি থেকে নির্মম ভাবে ছেঁটে ফেলা হয়েছে। যেমন, যে সিম্বা এত দিন কোনও লড়াই করেনি, পুরোপুরি ভেজিটেরিয়ান হয়ে গিয়েছিল, সে কী ভাবে দুম করে সরাসরি কাকা স্কারের সঙ্গে মিনিট দশেক লড়াই করে তাকে হারিয়ে দিল? যে সিম্বাকে সবাই জানতো মৃত, সেই হারানো সিম্বাকে ফিরে পেয়ে সিম্বার মা সরাবির প্রতিক্রিয়া যথেষ্ট কম।

সিম্বার ছোটবেলার সাথী, নালার সঙ্গে প্রেমের দৃশ্যগুলি চমৎকার। হিন্দি ও ইংরেজি, দুই ভার্সানই প্রচুর মজাদার ডায়লগে ভরপুর। হিন্দিতে জ্যাজুর গলায় আসরানি আবারও বুঝিয়ে দিলেন, পুরনো চালের প্রবাদটা আজও সত্যি। প্রধান ভিলেন স্কারের গলায় আশিস বিদ্যার্থী তুলনাহীন।তবে সবাইকে ছাপিয়ে যার কণ্ঠস্বর সারা থিয়েটার হলে গমগম করে বাজছে, যার জন্য সবাই হিন্দি ভার্সানটি দেখতে টিকিট কাটবেন, তিনি অবশ্যই শাহরুখ খান। তিনিও যে সত্যিকারের ‘কিং’ তা বেশ ভাল করে বুঝিয়ে দিয়েছেন। সিম্বার গলা, আরইয়ান খানের। বাবা-ছেলের গলায় এত মিল, যে মাঝে মাঝে মনে হচ্ছে, কিছু ডায়ালগ বোধহয় শাহরুখ বলছেন। সেই নব্বুই দশকের শাহরুখ খান।

তবে, একদম খুদে সিম্বার যিনি গলা দিয়েছেন, তার সঙ্গে বোধহয় কারওরই তুলনা চলে না। অসাধারণ ভয়েজ মড্যুলেশন। ছবিটিতে শুরু থেকে শেষ যেহেতু শাহরুখ খানের কণ্ঠস্বর রয়েছে তখন শাহরুখ ফ্যানেদের নিরাশ হওয়ার কোনও প্রশ্নই ওঠে না।এলটন জন-এর সঙ্গীত আর হ্যান্স জিমারের ব্যাকগ্রাউন্ড স্কোর ছবিটিকে এক অন্য মাত্রা দিয়েছে। তবে, থ্রিডি-র এফেক্ট কম। তাতে কী? যখন আরইয়ান খান বলবে, “ম্যাচ হুঁ সিম্বা… মুফাশা কা বেটা…,” তখন সত্যিই মনে হবে, “মেজাজটাই যে আসল রাজা…।”

এক কথায়, ‘দ্য লায়ন কিং’ নির্ভেজাল ভাল ছবি। যে ছবি দেখে মা-বাবার হাত ধরে আসা খুদেটি জানবে, মোটাদের মোটা বলতে নেই। কারও চেহারা নিয়ে হাসতে নেই। হাসলে, পুম্বা গুঁতিয়ে দেবে। টিম্বা-পুম্বা শেখাবে, ‘হাকুনা মাটাটা’…, টেনশন হলে শুধু বলুন, ‘হাকুনা মাটাটা’… মানে ‘নো ওরিজ…অল ইজ ওয়েল।’ মুফাশার কাছ থেকে বাচ্চারা সবাই জানবে ‘সার্কল ইফ লাইফ’-এর কথা।

তাই, সপরিবার দেখার মতো ছবি ‘দ্য লায়ন কিং’। একটা ‘ফিল গুড ফ্যাক্টর’ আছে, ছবিতে। পজিটিভ স্পিরিট আছে। ওই যে বললাম, মেজাজটাই আসল রাজা!

শাহরুখ প্রযোজিত সিরিজে ইমরান হাশমি, নেটফ্লিক্সে দেখা যাবে সেপ্টেম্বরেই

খোঁজখবর ওয়েব ডেস্কঃ সেপ্টেম্বরে নতুন সিরিজ নিয়ে আসতে চলেছে নেটফ্লিক্স। ‘বার্ড অফ ব্লাড’ নামে এই সিরিজে প্রথমবার অভিনয় করতে দেখা যাবে ইমরান হাশমিকে। এই সিরিজের মাধ্যমেই ওয়েব জগতে পা রাখতে চলেছে শাহরুখ খানের প্রযোজনা সংস্থা রেড চিলিজ এন্টারটেনমেন্ট।

সেপ্টেম্বরের ২৭ তারিখ থেকে থ্রিলার সিরিজটি দেখতে পাওয়া যাবে। মোট আটটি এপিসোডের সিরিজ হতে চলেছে বলে মনে করা হচ্ছে। এই সিরিজের মাধ্যমেই ওয়েব দুনিয়ায় প্রথমবার পা রাখতে চলেছেন ইমরান হাশমি। তিনি ছাড়াও এই সিরিজে অন্যান্য চরিত্রে অভিনয় করতে দেখা যাবে কীর্তি কুলহারি, বিনীত কুমার, রজিত কাপুর, গৌরব বর্মাদের মতো অভিনেতাদের। এই সিরিজটি পরিচালনার ভার দেওয়া হয়েছে ঋভু দাশগুপ্তকে। বিলাল সিদ্দিকির বেস্টসেলিং উপন্যাস ‘বার্ড অফ ব্লাড’ থেকে এই সিরিজের গল্প নেওয়া হয়েছে। যে কারণে সিরিজের নাম এক রাখা হয়েছে। গল্পে ইমরান হাশমিকে দেখা যাবে এক র-এক্স এজেন্টের চরিত্রে। বর্তমানে যিনি অধ্যাপনা করেন । এরপর একটি মিশন এর জন্য আবার তাঁকে র-এ ফেরত আনা হয়। এই নিয়েই গল্প এগিয়ে চলে।

জনপ্রিয় শো থেকে সরে যাওয়ার গুঞ্জন, মুখ খুললেন রচনা

খোঁজখবর ওয়েব ডেস্কঃ গত কয়েকদিন ধরেই সোশ্যাল মিডিয়ায় গুঞ্জন, জনপ্রিয় শো থেকে সের যাচ্ছেন রচনা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর বদলে শো হোস্ট করবেন শ্রাবন্তী। এই প্রসঙ্গেই এবার মুখ খুললেন অভিনেত্রী রচনা।

বর্তমানে ‘দিদি নং ১’ একটি অত্যন্ত জনপ্রিয় শো। প্রত্যেকদিন বিকেলে ঘরে ঘরে এই শো দেখেন অনেকেই। সিনেমায় আর তেমনভাবে কাজ না করলেও দীর্ঘদিন ধরে এই শো হোস্ট করে আসছেন রচনা। দর্শক তাঁকে দেখেই অভ্যস্ত। তাঁর গ্রহণযোগ্যতাও রয়েছে দর্শকদের কাছে।
কিন্তু সাম্প্রতিক গুঞ্জনে অবাক তাঁর ভক্তরা। তাঁর বদলে টলিউডের আর এক সুন্দরী অভিনেত্রী শ্রাবন্তী আসছেন বলেও শোনা যাচ্ছিল। সম্প্রতি ‘টাইমস অফ ইন্ডিয়া’কে রচনা জানিয়েছেন, ‘এসব নেহাতই গুজব।’ তিনি জানিয়েছেন যে এপিসোডের শ্যুটিং চলছে আগের মতই। কোনও পরিবর্তনের কথা তাঁর জানা নেই।

এই শো-এর অষ্টম সিজন চলছে। ইতিমধ্যেই ১০০০ এপিসোড পার করেছে এই শো। সামনেই অনেক স্পেশাল এপিসোড আসছে বলেও জানিয়েছেন রচনা।

বাংলা ছবিতে একসময় প্রচুর কাজ করেছেন রচনা। কাজ করেছেন ওড়িয়া ও তেলেগু ছবিতেও। একাধিক হিট ছবিতে কাজ করেছেন সেখানে। ১৯৯৪ তে মিস ক্যালকাটা খেতাব জেতেন তিনি। এখনও পর্যন্ত ৩৫টি বাংলা ছবিতে কাজ করেছেন রচনা। কাজ করেছেন প্রসেনজিত চট্টোপাধ্যায়, চিরঞ্জিতের মত অভিনেতাদের সঙ্গে। সূর্যবংশম নামে একটি হিন্দি ছবিতে অমিতাভ বচ্চনের সঙ্গেও কাজ করেছেন তিনি। দক্ষিণি সিনেমায় রবিচন্দ্রন, উপেন্দ্র রাও ও চিরঞ্জিবীর সঙ্গে কাজ করেছেন রচনা।